সংবাদ শিরোনাম
লোডিং...
আমাদের উদ্দেশ্য মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে আলোচনা করা। এখানে মানুষ স্বাস্থ্য সম্পর্কে ধারণা পাবে।
Menu

সোমবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২২

হার্ট রোগে হোমিপ্যাথিক ঔষধ

হার্ট রোগে হোমিপ্যাথিক ঔষধ



হার্টের চিকিৎসায় হোমিপ্যাথিক ঔষধ :
রোগের না রোগীর চিকিৎসা করা হয়। চিকিৎসা বিজ্ঞানকে যিনি রোগের নামের গোলামী থেকে মুক্তি দিয়েছেন তিনি হচ্ছেন স্যামুয়েল হ্যানিম্যান। এই কৃতিত্বের দাবীদার এক মাত্র তিনি। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা রোগের যত কঠিন কঠিন নামই দেন না কেন, তাতে একজন হোমিও ডাক্তারের ভয় পাওয়ার বা দুঃশ্চিন্ত কোনো করণ নেই। যত চিন্তা তাদের কারণ (এ্যালোপ্যাথ হার্টের ঔষধগুলো ইতর প্রাণীর উপর পরিক্ষীত)। রোগের লক্ষণ এবং রোগীর শারীরিক-মানসিক বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী ঔষধ দিতে থাকুন। রোগের নাম যাই হোক না কেন, তা আরোগ্য হবেই। হ্যানিম্যান এটাই শত-সহস্রবার প্রমাণ করে দিয়েছেন। রোগীর মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পযন্ত সমস্ত লক্ষণ সংগ্রহ করুণ। তারপর সেই অনুযায়ী ঔষধ নির্বাচন করে খাওয়াতে থাকুন হৃদরোগ বাপ বাপ ডাকে ছেড়ে পালাবে। রোগের নাম নিয়ে অযথা সময় নষ্ট করার কোন দরকার নাই। হোমিও চিকিৎসায় যদি আপনার হৃদরোগ নির্মূল না হয় (অথবা কোন উন্নতি না হয়), তবে হোমিওপ্যাথির উপর বিশ্বাস হারাবেন না। কোননা এটি সেই হোমিও চিকিৎসকের ব্যর্থতা।



যদিও সমগ্র লক্ষণ অনুসারে নির্বাচিত যে-কোন হোমিও ঔষধেই যে কোন হৃদরোগ নিরাময় হয়ে যায় এমন কিছু হোমিও ঔষধ আছে যারা হোমিওপ্যাথিতে হৃদরোগের চিকিৎসায় বেশী বেশী ব্যবহৃত হয়। তাদের মধ্যে আছে যেমন : Adonis vernalis, Amylenum nitrosum, Arnica Montana, Cactus grandiforus, Convallaria majalis, Crataegus oxyacantha, Digitalis purpurea, Iberis amara, Kalimia Latifollia, Lachesis mutus, Latrodectus mactans, Laurocerasus, Lilium tig, Lycopus virginicus, Naja tripudians, Natrum muriaricum, Aurum metallicum, vanadium, Spigelia anthelimintica ইত্যাদি। কাজেই হৃদরোগ চিকিৎসায়ও আমাদেও সকলেই উচিৎ প্রথমে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা অবলম্বন করা। কেননা অন্যান্য চিকিৎসা বিজ্ঞানের তলনায় কমপক্ষে একশ ভাগ কম খরচে হেমিও চিকিৎসায় হৃদরোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। অপরদিকে এ্যালোপ্যাথিক জাতীয় ঔষধ এবং অপারেশন বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই হৃদরোগীর মৃত্যুকে দ্রুত ডেকে আনে। যে যাক, হৃদরোগ চিকিৎসায় ভাল নাম ডাকওয়ালা বিশেষজ্ঞ হোমিও ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হওয়া উচিৎ। কেননা সাধারণ হোমিও ডাক্তাদের দ্বারা হৃদরোগের চিকিৎসা সফল হওয়ার সম্ভাবনা কম, বরং হোমিওপ্যাথিতে প্রচন্ড দক্ষতা আছে এমন চিকিৎসক প্রয়োজন।


হোমিওপ্যাথিক ঔষধ :
Crataegus oxyacantha  (ক্রেটিগাস) : হোমিওপ্যাথিতে প্রচালিত হৃদরোগের ঔষধ গুলোর মধ্যে ক্রেটিগাস ঔষধটি হলো হার্টের জন্য ভিটামিন-টনিকের মতো যার তেমন কোন সাইড-ইফেক্ট নেই। এটি একাই শতকরা ৯৫% ভাল হৃদরোগ নিরাময়ের ক্ষমতা রাখে। ধরা যাক আজ থেকে একশ বছর পূর্বে আয়ারল্যান্ডের ডা: গ্রীন নাম একজন হোমিও চিকিৎসা বিজ্ঞানী এটি আবিস্কার করেন। তিনি শুধু এই একটি হোমিওপ্যথিক ঔষধ দিয়ে হৃদরোগী আরেগ্য করেছিলেন যে, সারা পৃথিবীতে হৃদরোগের শ্রেষ্ঠ চিকিৎসক হিসেবে তার নাম ছিড়িয়ে পড়েছিল বিশ্বজুড়ে। বিশ্বে সকল প্রান্ত থেকে হৃদরোগীরা পঙ্গপালের ন্যায় আয়ারল্যান্ডে ছুঁটে যেতো। তিনি হোমিওপ্যাথিক ঔষধ নিন্মশক্তি পাঁচ ফোটা করে রোগ ৪ বার করে ঔষধ খাইয়ে অধিকাংশ হৃদরোগীকে রোগ মুক্ত করতে সক্ষম হয়েছিলেন।

Aurum metallicum  (অরাম মেট) : ব্রিটিশ হোমিও চিকিৎসা বিজ্ঞানী ডা: বানের্ট অগণিত জটিল হৃদরোগীকে আরোগ্য করে প্রমাণ করে দেখিয়েছেন যে স্বর্ণ থেকে প্রস্তুত এই হোমিওপ্যাথিক ঔষধটি হৃদরোগের একটি অতি প্রয়োজনীয় এবং সেরা ঔষধ। অরাম মেটের প্রধান লক্ষণ হলো দুই-তিন সেকেন্ডের জন্য মনে হয় হৃদপিন্ড বন্ধ হয়ে গেছে, তারপর আবার খুব জোরে চলতে শুরু করেছে, বুক ধড়ফড়ানি, নাড়ির গতি দ্রুত ক্ষীন এবং অনিয়মিত, হৃদপিন্ডের আকৃতি বৃদ্ধি পাওয়া(Hypertrophy) হার্টের ভালবের বা পেশীর বিকৃতি (Valvular lesions of arterio-sclerotic nature) রক্তনালীর প্রাচীর মোটা হওয়া (Arterio-sclerosis) চাপ (increased blood pressure)  হৃদরোগের কারণে শরীরে পানি নামা (Ascites) হৃদপিন্ডের বৈদ্যুতিক ভেল্টেজ কমে যাওয়া  (Pacemaker) বিষন্নতা বা দু:খবোধ (depression) হতাশা, আত্নহত্যার ইচ্ছা ইত্যাদি।
সাধারণত রোগীর বা তাহার পিতা-মাতা-স্বামীর অতীতে সিফিলিস রোগ হয়ে থাকলে আনাম মেট দারুণ ফল দেবে। মোটামুটি বলা যায়, আরাম মেটি একাই এ যুগের বহুল প্রচালিত হৃদরোগসমুহের শত করা ৯৫% ভাগ হৃদরোগ নিরাময় করতে সঙ্খম।

Digitalis purpurea (ডিজিটালিস) : জর্জ ভিথলকাসের মতে কোন হৃদরোগীর নাড়ির গতি যদি মিটিটে ৫০ বার অথবা তার চেয়ে কম হয়, তাবে তাকে চিশ্চিত ভাবেই ডিজিটালিস খাওয়াতে হবে। কেননা ইহা ডিজিটালিসের একেবাওে স্প্যাসিফিক লক্ষণ। তার হৃদরোগের নাম যাই কোন না কেন সেটি অবশ্যই সেরে যাবে। অবশ্য হৃদরোগ না হয়ে যদি লিভার, কিডনী, মস্তিস্ক, পাকস্থলী বা চর্মরোগ যাই হোক না কেন, নিরাময় হতে বাধ্য। ডিজিটালিসের অন্যান্য লক্ষণের মধ্যে আছে নাড়িরগতি দুর্বল অনিয়মিত, বিরতিযুক্ত, খবই ধীরগতি সম্পন্ন, শরীরের বাইরের এবং ভেতরের অঙ্গ-প্রত্যাঙ্গে পানি নামে/শোথ (dropsy) মায়োকার্ডয়ামের বৃদ্ধি (dilatation of the myocardium),  তরিকুলার ফ্লটার এন্ড ফিব্রিলেশান (auricular flutter and fibrillation), হার্ট ব্লক (heart block), মাইট্রাল ডিজিজ (mitral disease),  অত্যান্ত দুর্বলাত, অল্পতে বেহুঁশ হওয়া, চামড়া ঠান্ডা, শ্বাস-প্রশ্বাস অনিয়মিত, জন্ডিস, মুখমন্ডল নীলচে, সামান্য নড়াচাড়াতেই ভীষণ বুক ধড়ফড়ানি, নড়লেই মনে হয় হৃদপিন্ড বন্ধ হয়ে যাবে। পেরিকার্ডইডিস (pericarditis),  ইত্যাদি।


Lachesis mutus (ল্যাকেসিস) : কোন রোগীর ঘামলে হৃদরোগের বেড়ে যায়, নিদ্রা গেলে হৃদরোগ বৃদ্ধি পায়, তবে তাকে ল্যাকেসিস দেওয়া যেতে পারে। মনে রাখবেন হৃদরোগের নাম যাই কোন না কেন, তার নিশ্চিত রোগ মুক্ত আশা করতে পারেন।


Adonis vernalis ( এডোনিজ): সাধারণত বাতে আক্রমণ, ইনফ্লুয়েঞ্জা, বা ব্রাইটস ডিজিজের পরে হৃদরোগ দেখা দিলে তাতে এডোনিজ প্রয়োজ্য। ইহার প্রধান প্রধান লক্ষণ হলো হৃদপেশীর ফ্যাটি ডিজেনারেশন (fatty degeneration), হৃদরোগের কারণে শরীর পানি নামা (Cardiac dropsy), দুর্বল হার্ট এবং দুর্বল নাড়ি, মাইট্রাল এবং এওটিক রিগারজিটেশান (Mitral and aortic regurgitation),  এওরটার পুরাতন প্রদাহ ( Fatty heart pericarditis) ফ্যাটিহার্ট পেরিকার্ডাইটিস  (Rheunatic Emdocarditis), বাত জনিত এন্ডোকার্ডাইটিস (prececordial pan), হৃদপিন্ডে ব্যাথা (palpitation) বুক ধড়ফড়ানি (Palapitation),  শ্বাসকষ্ট (dyspnoea), হৃদরোগজনিত হাঁপানি (Cardiac asthma), মায়োকার্ডাইটিস (Myocarditis)  ইত্যাদি হার্টেও ভাল্বের সমস্যায় ইহা ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

Arnica Montana ( আর্নিকা) : আর্নিকা হৃদপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে ভালো ঔষধ। যাদের ঘন ঘন বুকে ব্যথা উঠে অথবা যাদের একবার হার্ট এটাকের  (স্টাক) হয়েছে, তাদের সব সময় আর্নিকা ঔষধটি পকেটে নিয়ে চলাফেরা করা উচিত। এটি আপনাকে হার্ট এটাকে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতলের যাওয়া বা অকাল মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করতে পারে।

Latrodectus mactans  (লেট্রোডেক্টাস ম্যাকটেনস) : হৃদপিন্ডের ব্যথার সব চেয়ে ভালো ঔষধ হলো লেট্রোডেক্টাস ম্যাকটেনস (Latrodectus mactans)  বিশেষত ব্যথা যখন বাম হাতের দিকে ছড়াতে থাকে। মনে হয় কেউ যেন শক্ত হাতে গলা চেপে ধরেছে, দম বন্ধ হয়ে এখনই মারা যাবে এ লক্ষণে ব্যবহার করা যায়। 

Amylenum nitrosum (অ্যামিলেনাম নাইট্রোসাম):  এটি হৃদপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে কমন ঔষধ। এটি হৃদপিন্ডের এবং শরীরের ওপরের অংশের রক্তনালীকে প্রসারিত কারার মাধ্যমে বুকে ব্যথা নিরাময় করে।

Glonoine (গ্লোনাইন) : গ্লোনাইন হলো হৃদপিন্ডের ব্যথার এক নাম্বার ঔষধ যা সুনির্দিষ্ট কোন লক্ষণ ছাড়াই রোগীকে দেওয়া য়ায়। পাশাপাশি এটি হাই-ব্লাড প্রেসারের ও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ।

Cactus grandiflorun  : (ক্যাকটাস গ্র্যান্ডিফ্লোরাস) ইহা হৃদপিন্ড রোগের একিট উল্লেখযোগ্য ঔষধ। প্রধান প্রধান লক্ষণ হলো মনে হবে হৃদপিন্ডকে কেউ তার লোহার হাত দিয়ে এমন ভাবে চেপে ধরছে যে সেটি নড়াচড়া করতে পারছে না।

Convallaria majalis (কনভাল্লারিয়া মাজালিস) : কনভেলেরিয়া রেগুলার অথবা ইরেগুলার হার্ট বিট বিশিষ্ট দুর্বল হৃদপিন্ডের জন্য একটি মুল্যবান ঔষধ, সাথে ভাল্বের সমস্যা থাকুক অথবা নাই থাকুক। ইহার প্রধান লক্ষণ হলো রোগী শুইতে পারে না (অর্থাৎ শুইলে রোগ মাত্রা বেড়ে যায়। ইহাতে ব্যাবহার করা যেতে পারে।

Vanadium (ভ্যানডিয়াম) : সাধারণত বয়স চল্লিশের দিকে আসলে মানুষ নানা রকমের রক্তনালী সংক্রান্ত রোগের বা হৃদরোগে আক্রান্ত হতে শুরু করে।
এ জন্য এই বয়স থেকে প্রত্যেকের (নিন্ম শক্তিতে বছর অন্তর একমাস) ড্যানাডিয়াম খাওয়া উচিত। তাহলে হৃদরোগ ধরেকাছে আসতে পারবে না। লক্ষণ অনুযায়ী হোমিওপ্যাথিক ঔষধ সেবন করলে হার্টেও জটিল রোগ নিরাময় হবে ইনসাআল্লাহ


চিকিৎসার জন্য যোগাযোগ :
আরোগ্য হোমিও হল
প্রতিষ্ঠাতা: মৃত: ডা: আজিজুর রহমান
প্রা: ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)
বি.এস. এস/ ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা)
ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)
ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা)
রেজিষ্টার্ড নং- ১৬৯৪২
স্থাপিত – ১৯৬২ ইং
মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী
মোবাইল ০১৭১৮-১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com








শনিবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২

  পুরুষদের বন্ধ্যাত্বে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিন

পুরুষদের বন্ধ্যাত্বে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিন




 
পুরুষদের বন্ধ্যাত্বে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা :

পুরুষের শুক্রাণুর গুনগত মান বাড়াতে কিছু পরামর্শ..
শুক্রাণুর গুণগত মানের হ্রস ও শুক্রাণুর সংখ্যা কমে যাওয়া সারা বিশ্বজুড়েই এখন বিজ্ঞানীদের মহা চিন্তার বিষয় হয়ে দঁড়িয়েছে। শুক্রাণু নিয়ে সমস্যা সমাধানে বিজ্ঞানীরা কিছু উপায় খুজে পেয়েছে। তা নিয়ে নিয়ে আলোচনা করা হলো :

পুরুষদের শুক্রাণুর সংখ্যা উন্নতি ঘটাতে পারে কোন কোন পুষ্টিকর পদার্থ এবং খাদ্য, যে গুলো খাবারের পুরুষদের শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করতে পারে সে খাদ্য গুলো খাদ্য গুলো খান।
পুরুষত্বহীনতা বা পুরুষদের বন্ধ্যাত্বে চিকিৎসায় আয়ুর্বেদ মতে মধুর ব্যবহার নতুন নয়। মধু মিশিয়ে নিয়মিত এক গøাস করে দুধ খেলে স্পার্ম কাউন্ট শূন্য থেকে বেড়ে ৬ কোটি পর্যন্ত হতে পারে। মানবদেহে শুক্রাণুর প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। আপনি যদি অপনার জীবনে নতুন অতিথি চান ত হলে এখন থেকেই প্রস্তিুতি নিন। 

বিশেষজ্ঞদের মতে, দুধের মধ্যে থাকা ভিটামিন এ পুরুষ সেক্স হরমোনের পরিমাণ বাড়ায়। অন্যদিকে মধুতে থাকা ভিটামিন ই ও জিঙ্ক সেক্স স্টিমুল্যান্ট হিসেবে কাজ করে পুরুষদের যৌনশক্তি বাড়ায়। সমীক্ষায় জনা গেলে ১৮ থেকে ৫০ এর মধ্যে বয়স এমন ১০ শতাংশ পুরুষই লো স্পার্ম কউন্টের শিকার। তাই নিয়মিত মধু মিশিয়ে দুধ খেলে ভালো উপকার পাওয়া যাবে। 

বিশেষজ্ঞরা জানিয়ছেন, ঘরোয়া বেশ কিছু উপায়ে শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ানে যায়। এক গøাস দুধ ভালো করে ফুটিয়ে নিয়ে তাতে মধু মিশিয়ে পান করতে হবে। নিয়মিত কিছুদিন খেলে বীর্যে স্বাস্থ্যকর শুক্রাণু সংখ্যা বাড়বে।


১/ ডার্ক চকোলেট
শক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করার জন্য প্রথম এবং সম্ভবত সবচেয়ে সেরা খাধ্যটি হল ডার্ক চকোলেট। চকোলেট প্রস্তুতকারী ক্যাকাও বিনগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে পরিপূর্ণ। আবার ডার্ক চকোলেটের মধ্যে থাকে এলু আরজিনিন নামক একটি উৎসেচক যা শুক্রাণুর পরিমাণ বাড়িতে সাহায্য করে। ডিনারের শেষে স্বাদের পরিতৃপ্তির জন্য একটা সুস্বাদু ডেজার্টেও পরিবর্তে আপনি এবং আপনার সঙ্গী এক টুকরো ডার্ক চকোলেট নিয়ে ভাগ করে খেতে পারে।

২/ ডিম
এ ব্যাপারে কোনও গোপনীয়তা নেই যে শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ানোর জন্য
ডিম হর একটা মৌলিক সুপার ফুড। ডিম ভিটামিন ই এবং প্রোটিনে সমৃদ্ধ যা শুক্রাণু সক্রিয়তায় সাহায্য করে। ডিম খেলে তা আবার ফ্রী র‌্যাডিক্যাল বা মুক্ত মূলকগুলির থেকেও শুক্রাণুকে রক্ষা করে, এর ফলে নিষেকের সম্ভবনা দ্বিগুণ হয়ে যায়। তাছাড়াও ডিম হল জিঙ্কের একটি সমৃদ্ধ উৎস যা
শুক্রাণূও সক্রিয়তার বিকাশের জন্য পরিচিত । অপনার শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধি করার জন্য অসংখ্যভাবে ডিম খান।

৩/ গোজি বেরি
শুক্রাণুর সংখ্যা  বৃদ্ধিকারী একটি ভারতীয় সুপার ফুড, গোজি বেরি হল প্রকৃতির দান। গোজি বেরি মেজাজ এবং স্ক্রোটাম স্যাকের চারপাশে তাপমাত্রার উন্নতি ঘটাতে সহায়তা করে যা শুক্রাণু উৎপাদনকে অনুকুল করে তোলে। যদি এর কোনও চিকিৎসা ভিত্তিক প্রমাণ নেই তবে এতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা শুক্রাণুর সক্রিয়তা এবং প্রজনন ক্ষমতার উন্নতি ঘটায়।

৪/ কলা  
শুক্রানুর উৎপাদন বৃদ্ধিও জন্য করা হলে নি:সন্দেহে একটি সেরা পছন্দের  খাবার। ফ্যালিক আকৃতির এই ফলটি ভিটামিন বি ১, সি এবং ম্যাগনেসিয়ামে বমৃদ্ধ যা শুক্রাণুর গতিশীলতা বৃদ্ধি করে এবং শুক্রাণু উৎপাদনে সাহায্য করে। কলার মধ্যে আবার ব্রোমেলাইন নামক একটা বিরল উৎসেচকও থাকে যা শুক্রাণুর সংখ্যা এবং গতি শীলতা বাড়াতে সহায়তা করে। এ গুলি আবার সেক্স হরমোন গুলিকে নিয়ন্ত্রণ এবং আপনার মেজাজকে প্রফুল্ল করে তুলতে পারে। সুতারাং আপনি যদি কলা খেতে ভালোবাসেন তবে তা অব্যাহত রাখান জন্য আপনার যথেষ্ট এবং আরও বিশেষ কিছু কারণ ও আছে।

৫/ রসুন
রসুন ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করার পাশাপাশি স্কোটামের মধ্যে শুক্রাণু উৎপাদন বৃদ্ধি করতে ও সাহায্য করে। এর মধ্যে থাকে অ্যালিসিন যা সঠিক অংশ গুলিতে রক্ত সঞ্চালনকে উদ্দীপিত করার জন্য প্রয়োজনীয় যৌন অঙ্গাণুগুলিতে রক্ত অবাধে প্রবাহিত হয় এবং কোনও রকম ড্যামাজ হাওয়া থেকে সে গুলিকে রক্ষা করে। সিলেনিয়াম, যা অপর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উৎসেচক, রসুনের মধ্যে পাওয়া যায় যা শুক্রাণু গতি শীলতা উন্নত করতে সহায়তা করে থাকে।

৬/ পালংশাক
সজু শাকসবজি খাওয়া আমাদের স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো কারণ এগুলি আমাদের দেহের মধ্যে অসংখ্য ক্রিয়াকলাপগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। সবুজ শাক-পাতাগুলো বিশেষ করে শুক্রাণু উৎপাদনে সাহায্য করতে পারে। পালংশাক ফোলিক অ্যাডিডে সমৃদ্ধ যা শুক্রাণুর বিকাশের জন্য অপরিহার্য।

৭/ শতমূলী 
শতমূলী বা অ্যাসপারাগাস হল ভিটামিনের একটা ভাল উৎস, যা ফ্রী র‌্যাডিক্যালগুলি থেকে শুক্রাণুকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এটা আবার এমনকি শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়াতে এবং ডিম্বাণুর দিকে সাঁতরে যেতে সাহায্য কারার মধ্যে প্রজননের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করতেও সাহায্য করে।

৮/ আখরোট
আখরোটগুলি ব্রেন ফুড হিসেবে সুপরিচিত, তাবে এগুলি শুক্রাণুর সংখ্যা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে।  ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাডিডে সমৃদ্ধ হওয়ায়, আখরোট শুক্রাণুর জীবনী শক্তি উন্নত করতে সাহায্য করে।

৯/ ঝিনুক বা অয়েস্টার
ঝিনুক হল জিঙ্কের একটা দুর্দান্ত উৎস যা শুক্রাণুর সক্রিয়তার উন্নতি করতে সাহায্য করে। অতএব, ঝিনুক খান এগুলে গøাইকোজেন এবং টরিন সরবরাহ কারার মাধ্যমে আপনার প্রজনন প্রক্রিয়াটিকে উদ্দীপ্ত করতে সাহায্য করে।

১০/ অশ্বগন্ধা (জিন্সং)
প্রাচীন এই মূলটি একটি চমৎসার আমোত্তেজক বস্তু হিসেবে কাজ করে এবং বহুকাল ধরে বিভিন্ন ধরনের রান্নার কাজে ব্যবহার হয়ে আসছে। বলা হয় যে এটা কেবল টেস্টোস্টেরন বাড়ায় না তার সাথে সাথে আবার ইরেকটাইল ডিসফাংশনের চিকিৎসাতেও সাহায্য করে। এটি তাজা বা শুকনো আকারে পাওয়া যায় এবং চা হিসেবে খাওয়া হয়।


১১/ ডালিম
যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ডালিম পরিচিত। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুলির একটি সমৃদ্ধ উৎস হওয়ার কারণে এগুলি শুক্রাণুর মাত্রা এবং শুক্রাণু উৎপাদনের গুণগত মান বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। প্রতিটি অন্য দিনে আপনি ডালিমকে কাঁচা অথবা রস আকারে খেতে পারেন।

১২/ কুমড়ো দানা
এই বীজগুলি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফাইটোস্টেরল এবং অ্যামাইনো অ্যাসিডে পুর্ণ যা পুরুষেদের মধ্যে প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। কুমড়োর দানা আবার শুক্রাণুর সংখ্যা, গতিশীলতা এবং সার্বিক ভাবে পুরুষত্ব বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। আপনি এই বীজগুলিকে স্যালাডের উপর টপিং হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন কিম্বা ¯œ্যাক্সেও মত সে গুলিকে কঁাঁচাই খেতে পারেন।

১৩/ গাজর
গাজর খাওয়া যেতে পারে একটি ¯œ্যাক্স বা সবজি হিসেবে। গাজর বিটা ক্যারোটিনের একটা সমৃদ্ধ উৎস, যেটি হল এক প্রকার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ফ্রী র‌্যাডিক্যালগুলির থেকে শুক্রাণুকে রক্ষা করার মাধ্যমে তার স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণ করে। আর এর ফল রুপে এটি শুক্রাণুর গতিশীলতা বৃদ্ধি করে, আর এ ভাবে সেটিকে ডিম্বাণুতে পোঁছাতে সাহায্য করে।

১৪/ মুসুর
রান্না করা মুসুরগুলি হল ফোলিক অ্যাডিডের এক চমৎকার উৎস, এটি শুক্রাণূ উৎপাদনের একটি গুরত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। ফোলিক অ্যাডিডের অভাব পুরুষদের মধ্যে ক্রোমোজোমীয় অস্বাভাবিকতাগুলি সৃষ্টি করতে পারে, সুতরাং প্রত্যহ মুসুর খাওয়ার দরকার।

১৫/ জিঙ্ক সমৃদ্ধ খাদ্য
জিঙ্ক সমৃদ্ধ যে কোনও খাদ্য ফ্রী র‌্যাডিক্যাল ড্যামেজ হওয়া থেকে শুক্রানূকে রক্ষা করে। এটি আবার কাম শক্তিকেও দউদ্দীপ্ত করে তোলে। সব ধরনের মাছ জিঙ্কেও একটা দুর্দান্ত উৎস। আপনি আপনার জিঙ্ক গ্রহণের পরিমাণ বড়িয়ে তুলতে পারেন। বাদাম, মটরশুটি, সম্পূর্ণ গমের দানা, ফর্টিফায়েড বা বলবৃদ্ধিকারী সিরিয়াল বা দানাশস্য এবং দুগ্ধজাতীয় খাবার গ্রহণ করার মাধ্যমে।

১৬/ গোমাংস
রেড মিট যেমন গোমাংস হল জিঙ্কের একটি অসাধারণ উৎস। গোমাংস আবার ফোলিক অ্যাসিড এবং সিলেনিয়ামেরও একটা সমৃদ্ধ উৎস, যা শুক্রাণুর স্বাস্থ্যেও উন্নতি ঘটাতে সাহায্য করে। আপনি যদি মাংস খেতে পছন্দ করেন, গোমাংস বা বীফ খান এটা শুক্রাণুর উৎপাদন এবং গতিশীলতায় সাহায্য করবে।

১৭/ মেথি
ভারতীয় প্রতিটি পরিবারে ব্যবহার হওয়া ঐতিহ্যবাহী উপকরণ, মেথি বা ফেনুগ্রীক, শুক্রাণূর সংখ্যা এবং কামশক্তি, বৃদ্ধির জন্য ব্যবহার হয়ে থাকে। ডাল অথবা যে কোনও সবজিতেই এটি ফোরণ হিসেবে বা অন্য যে কোন ভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

১৯/ অলিভ অয়েল বা জলপাই তেল
নিয়মিত অলিভ অয়েল গ্রহণ করলে তা শুক্রাণুর সংখ্যা এবং তার গুণমানের উন্নতি ঘটাতে সাহায্য করে। এটা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কম রাখে, টেস্টিক্যালে অক্সিজেন সরবরাহ বৃদ্ধি করে। এবং সুস্থ ও স্বাস্থ্যকর শুক্রাণু গঠনে সাহায্য করে।

২০/ টমেটো
টমেটো হল প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধিকারী দুর্দান্ত একটি খাদ্য। এর মধ্যে রয়েছে লাইকোপিন, যেটি হল এক প্রকার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা বীর্যের গঠন এবং ক্রিয়াকলাপ উন্নত করার জন্য পরিচিত। টমেটো নিয়মিত সেবন করলে তা পুরুষদের প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে।

কয়েকটি টিপস আপনার প্রজনন মাত্রা উন্নত করার জন্য 
এই খাবার গুলি খাওয়ার পাশাপাশি আপনার শুক্রাণুর স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে আপনার জীবনযাত্রায় কিছু পরিবর্তন নিয়ে আসা উটিত। সুতরাং আপনি যদি আপনার প্রজনন ক্ষমতার মাত্রাটি উন্নত করতে চান তবে আপনার মেচে চলা উচিত এমন কিছু টিপস এখানে দেওয়া হল।

ক/ আপনার প্রজনন ক্ষমতা উন্নতি করতে আপনাকে অবশ্যই ধুমপান ত্যাগ করতে হবে। ধুমপান পুরুষদের প্রজনন ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে। সুতরাং আপনার ধুমপান ত্যাগ করাটা গুরুত্বপূর্ণ।

খ/ দীর্ঘ সময় ধরে একটানা বসে থাকা এড়িয়ে চলুন কারণ এটা আপনার স্ক্রটালের তাপমাত্রাকে বাড়িয়ে তুলতে পারে যা আবার আপনান প্রজনন ক্ষমতাতে ও প্রভাব ফেলতে পারে। 

গ/ আপনি যদি সন্তান চান, বারেবারে সঙ্গম করুন । আপনার স্ত্রীর ওভ্যুলেটিং পর্বে তার সাথে সঙ্গম করলে, তার গর্ভবতী হয়ে ওঠার সম্ভাবনা অবশ্যই বাড়বে, তবে বারবার সঙ্গম করলে আপনার প্রজননের মাত্রা উন্নত হবে।

ঘ/ আপনি যদি অতিরিক্ত ওজনের অধিকারী বা স্থলতার শিকার হন, তবে আপনার ওজনকে একটা স্বাস্থ্যকর মাত্রায় নিয়ে আসতে কঠোর পরিশ্রম করুন। অতিরিক্ত ওজনের অধিকারী বা স্থলতা হরমোন ভারসাম্যকে বিঘি্নত করে, পরিমানে যা আবার শুক্রাণুর সংখ্যা হ্রাস করে।

ঙ/ স্বাস্থ্যকর ফ্যাট গ্রহণের পরিমাণটিকে আপনি বাড়ান ওমেগা -৩ এবং ওমেগা-৬ এর মতো পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটগুলি শুক্রাণু ঝিল্লির স্বাস্থ্যকর বিকাশে সহায়তা করে। 

আপনার যায়েটের সাথে পুষ্টিকর খাদ্যগুলি অন্তর্ভুক্ত করুণ। অপনার প্রজনন ক্ষমতার মাত্রায় উন্নতি ঘটতে উল্লেখ্য খাদ্যগুলি গ্রহণ করুণ এবং ধুমপান ত্যাগ করুণ।
হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসার মাধ্যমে শুক্রাণু এর পরিমাণ বাড়ানো সম্ভব বলে করছেন বিজ্ঞানীরা। নিন্মে কয়েকটি ঔষধের লক্ষণ অনুযায়ী ঔষধ দেওয়া যেতে পারে।

হোমিওপ্যাথিক ঔষধ :
লাইকোপোডিয়াম, ক্যালেডিয়ম, এগনাস, বিউফো, অনোসেমোডিয়াম, এসিড ফস, ডামিয়ানা, নাক্স ভোম, ক্যানথারিস, ট্রিবিউলাস, কষ্টিকাম, ষ্টেফেসিগ্রিয়া ইত্যাদি।






চিকিৎসার জন্য যোগাযোগ :-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বি.এস.এস/ ডি.এইচ. এম.এস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডি.এইচ. এম.এস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২ ইং

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com

বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী, ২০২২

বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাবে হোমিওপ্যাথিক ও বায়োকেমিক ঔষধ

বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাবে হোমিওপ্যাথিক ও বায়োকেমিক ঔষধ



বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাবে হোমিওপ্যাথিক ও বায়োকেমিক চিকিৎসা:


একটু বড় বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাব করা একটি রোগ। এই রোগটির নাম ইনুওরেসি'স। সাধারণত ৪-৫ বছরের ভেতর একটি শিশু পূর্ণভাবে টয়লেটে গিয়ে প্রস্রাব করতে শিখে। যদি ৫ বছরের পরেও কেউ বিছানায় প্রস্রাব করতে থাকে তাহলেই আমরা তাকে ‘ইনুওরেসিস বলবো। কেউ কেউ প্রথম থেকেই টয়লেটে গিয়ে প্রস্রাবের অভ্যাসটি রপ্ত করতে পারে না। অন্যরা আবার প্রথমে হয়ত অভ্যাসটি ঠিকই গড়ে তুলেছিল কিন্তু কয়েক বছর পর আবার কাপড়ে প্রস্রাব করা শুরু করে।

প্রথম ক্ষেত্রটিকে আমরা প্রাইমারি এবং দ্বিতীয় ক্ষেত্রটিকে সেকেন্ডারি ইনওরেসিস বলবো। সাধারণত মেয়েদের তুলনায় ছেলেরাই এ রোগে বেশি ভোগে। সম্ভবত এই কারণে যে, কোন কিছু শিক্ষণের (Learning) জন্য যে Conditioning-এর প্রয়োজন তা মেয়েদের ক্ষেত্রে সহজে ঘটে। সংখ্যা তথ্য সাধারণত কত শিশু এই রোগে ভোগে তার কোন নির্ভরযোগ্য তথ্য বাংলাদেশে নেই।

তবে বৃটেনে ৫ বছর পর্যন্ত ১০%, ৮ বছর পর্যন্ত ৪% এবং ১৪ বছর পর্যন্ত ১% শিশু এই রোগে ভুগে থাকে। বাস্তবে এর চেয়েও বেশিসংখ্যক শিশু এই রোগে ভুগে থাকে। কিন্তু তাদের বাপ-মা তা ডাক্তারের কাছে রিপোর্ট করে না বলে রেকর্ডকৃত হচ্ছে না। এবং এ কারণেই যারা ডাক্তারের কাছে চিকিৎসার জন্য আসে তাদের বয়স প্রায়ই ৮/১০ কিংবা তারও বেশি হয়ে থাকে। যদি এই ন্যূনতম হিসেবেও ধরা হয় তাহলে বাংলাদেশে ৮ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে ১৬-২০ লাখ শিশু এই রোগটিতে ভুগছে।

কারণসমূহ -- বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কোন শারীরিক কারণ পাওয়া যায় না। তাই কারণসমূহকে দুইভাবে ভাগ করা যায়।

ক. শারীরিক কারণ

১. মূত্রনালীর সংক্রমণ,

২. প্রস্রাবের থলির ধারণ ক্ষমতা কম হওয়া কিংবা তার কার্যকারিতায় ত্রুটি থাকা

৩. স্নায়ু সিস্টেম-এর পূর্ণতা বা পরিপক্কতা (Maturation)দেরিতে হওয়া

৪. বংশগতির প্রভাব থাকা, কেননা দেখা গেছে এসব রোগীর ৭০% নিকটাত্মীয়েরও এই রোগ ছিল। তাছাড়া ডায়াবেটিস, মৃগীরোগ, স্পাইনা বাইফডা ইত্যাদি রোগের সঙ্গেও এর লক্ষণ প্রকাশ পেতে পারে।

 খ. মানসিক ও পারিপার্শ্বিককারণ সমূহ -- এটার মধ্যে রয়েছে অত্যন্ত কড়াকড়িভাবে টয়লেট ট্রেনিং করানো, শিশুর প্রতি বাপ-মা'র নেতিবাচক কিংবা উদাসীন দৃষ্টিভঙ্গি, সংসারে অশান্তি ইত্যাদি


হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা :
রাস-এরোমেটিক (Rhus – Aromatica):শিশুদের বিছানায় প্রস্রাবে রাস-এরোমেটিক(Rhus – Aromatica), দিনে ৩ বার ৫ ফোটা করে অব্যর্থ ফল দেয়।

(Cina) : ক্রিমিতে আক্রান্ত শিশুরা যদি ঘুমের ঘোরে বিছানায় অসারে প্রস্রাব করে এবং সর্বদা ফোটা ফোটা প্রস্রাব করে তাদের জন্য সিনা দেয়া প্রয়োজন।২০০ ও ওয়ান এম শক্তির ঔষধ সকাল বিকাল দুই মাত্র সেব্য। শিশু মাঝে মাঝেই নাক চুলকায় বা বালিশে নাক ঘষে। ঘুমের মধ্য দাঁত কড়কড় করে। অত্যধিক আবদারপরায়ণ। অনবরত এটি ওটি চায়। দিলেও সন্তুষ্ট হয় না। আবার আর কিছু খায়। অত্যধিক ক্ষুধা ও খায়। জিহ্বা পরিষ্কার এমন শিশু বিছানায় প্রস্রাব করলে সিনা (Cina 2০০, 1০০০ প্রয়ােজ্য।

(Causticum) : শিশু প্রথম ঘুমেই বিছানায় প্রস্রাব করে কষ্টিকাম তাদের পরম বন্ধু। শীতকালে বিছানায় প্রস্রাবের প্রবনতা বেশি হলে কষ্টিকাম উত্তম ঔষধ। বিছানায় প্র্রস্রাবের চিকিৎসার কথা মনে হলেই এই ঔষধের নাম স্মরন করা হয়। ৩০ বা ২০০ শক্তির ঔষধ দিনে দুই মাত্রা সেবন করতে হয়। 
ঘুমের মধ্য অসাড়ে প্রস্রাব করে, কিছুই জানতে পারে না। শিশু / বাচ্চা খুব নম্র। তিরঙ্কার করলে কেঁদে ফেলে। হাচি কাশির সময় ২/১ ফোটা প্রস্রাব বের হওয়ার অভ্যাসে কষ্টিকাম (Causticum) 200, 1000.

(Kreosote): যেসব বাচ্চারা মনে করে যে সে বাহিরে প্রস্রাব করছে কিন্তু ঘুম থেকে উঠে দেথে যে নিজের বিছানায়ই প্রস্রাব করেছে, সহজে জাগানো যায় না, বিছানায় প্রস্রাব করার পরেও বাচ্চা ঘুম থেকে জাগ্রত হয় না, প্রস্রাবে ভিজেই ঘুমাতে থাকে। 
দিনই জোর করে হলেও প্রস্রাব করিয়ে শোয়ানো তবুও শয়নের পর পরই প্রস্রাব করে ফেলে। বিছানায় প্রস্রাব করে অপরাধ বোধ করে, শিশু ভয়ানক শীতকাতর এরূপ লক্ষনের রোগীর জন্য ক্রিয়োজোট (Kreosote)প্রয়োজন । (Kreosote) c«‡qvRb | 30/200 শক্তির ঔষধ দিনে দুই মাত্রা সেব্য।

সিপিয়া (Sepia) : যে বাচ্চা প্রথম ঘুমেই বিছানায় প্রস্রাব করে এবং প্রস্রাবে দুর্ঘন্ধ থাকে তার জন্য সিপিয়া পরম বন্ধু। বিশেষ করে মেয়েদের বিছানায় প্রস্রাবের সমস্যায়  সিপিয়া (Sepia) : ভালো কাজ করে। 3০ বা 2০০ শক্তির ঔষধ দিনে দুই মাত্রা সেব্য।

(Sulphur) : সোরার প্রবনতা বা সুপ্ত সোরার বহিঃপ্রকাশ, গোসলে অনিহা, মিস্টি ও মশলা জাতীয় খাবার পছন্দ ,  যে সকল বাচ্চারা অতিরিক্ত দুষ্ট, বদমেজাজি এবং রাতের দ্বিতীয়ার্ধে বিছানায় প্রস্রাব করেন তাদের ক্ষেত্রে সালফার (Sulphur)কার্যকরী।

মেডোরিনাম Medorrhinum): সাইকোসিস ধাতুর রোগী এবং সুনির্বাচিত ঔষধ ব্যর্থ হলে মেডোরিনাম কার্যকরী, মেডোরিনামের শিশুরা দিনের বেলায় ঘুমালেও প্রস্রাব করে দেয়। রাত্রে বিছানায় প্রস্রাব করে। প্রস্রাব খুব দুর্গন্ধযুক্ত। রক্তশুন্য, শুষ্ক, শীর্ণ দূর্বল স্মৃতিশক্তি সম্পন্ন, খর্বাকৃতি ও স্থূলবুদ্ধি বিশিষ্ট শিশু। সে বাতাস চায় কিন্তু সে ঠান্ডা সহ্য করতে পারে না।
গনােরিয়া চাপা পড়া পিতামাতার সন্তানদের বিছানায় প্রস্রাব করার মেডোরিনাম Medorrhinum): উৎকৃষ্ট ঔষধ । শিশুর স্মরণশক্তি একবারেই কম। পড়ে মনে রাখতে পারে না। অংক মােটেই বুঝে না। প্রস্রাবে খুব দুর্গন্ধ। ক্ষুধা ও পিপাসা বেশী। দেহ শীর্ণ ও বামন।

সিফিলিনাম (Syphilinum) :সিফিলিটিক মায়াজমের শিশুরা রাত্রে ঘুমানোর সাথে সাথেই প্রস্রাব করে দেয়, এবং রাত্রের মধ্যে কয়েকবার বিছানায় প্রস্রাব করে, মুখে লালা জমার প্রবনতা এবং মুখে দুর্গন্ধ হয়।

স্যানিকিউলা (Sanicula) :  দিনের বেলায় যে সমস্ত শিশু বাচ্চারা কাপড় খুলতে খুলতে বা বিছানা হতে নামতে নামতেই প্রস্রাব করে ফেলে সেই সমস্ত শিশুদের রাত্রে বিছানায় প্রস্রাব করার ক্ষেত্রে ব্যবহার্য্য। প্রস্রাব করা স্থানে লালাভ দাগ পড়ে। তার মলের এক অদ্ভুত লক্ষণ এই যে, মল তার চার কোনা বিশিষ্ট হয়। শিশুর ঘাড়ে অত্যধিক ঘাম হয় এরকম লক্ষন ও বৈশিষ্ট্যে স্যানিকিউলা (Sanicula) : 3০, 2০০, 1০০০

সার্সাপেরিলা (Sarsaparilla):  যে সমস্ত শিশু বাচ্চারা জাগ্রত অবস্থায় না দাঁড়িয়ে প্রস্রাব করতে পারে না, বসে প্রস্রাব করতে গেলে ফোঁটা ফোঁটা প্রস্রাব নির্গত হয়, তাদের বিছানায় প্রস্রাব করার ইহা ভাল ঔষধ। জাগ্রত অবস্থার না দাঁড়ালে ভালভাবে প্রস্রাব না হওয়া অথচ শয়ন ও নিদ্রাঘােরে অসাড়ে প্রস্রাব হওয়া এর বিশেষত্ব। প্রস্রাব শেষ হওয়ায় প্রাক্কালে ভয়ানক যাতনা ও বিদ্যুৎ প্রবাহের ন্যায় শরীর ঝাকি দেয়াও এর আর এক বিশেষত্ব। এরূপ লক্ষন  বৈশিষ্ট্যে সার্সাপেরিলা (Sarsaparilla): 3০, 2০০, 1০০০

অ্যাসিড ফস (Acid Phos) : স্নায়ুতন্ত্রের কারণে মানসিক ও শারীরিক অক্ষমতা (রাতে বিছানায় মূত্রত্যাগ) নিয়ন্ত্রণ করতে উপযোগী।

ইকুইজেটাম (Equisetum) : কোন ঔষধ কাজ না করলে ইকুইজেটাম (ঊয়ঁরংবঃঁস) ৬ শক্তি দিনে তিন বার সেব্য।

ক্রিমি থাকিলে সিনা (Cina Maritima) ২০০ বা সােমরাজ Q, ৫ ফোটা করিয়া দিনে ৪বার কিছুদিন সেবনীয়। - ডাঃ প্রস্রাদ বন্দ্যোপাধ্যায়

ব্লুমিয়া ওডাে (Blumea Odorata) 2x (ডাঃ কাসিং) দিনে ৩ বার ৩ ফোটা করে। 

খুজা (Thuja Occidentalis) :আচিলযুক্ত বা লাল তিলওয়ালা শিশুদের বিছানায় প্রস্রাব করা ব্যাধিতে খুজা (Thuja Occidentalis) :2০০, 1০০০।

ব্যাসিলিনাম (Bacillinum): শিশু বা বালকদের শয্যামূত্রের ক্ষেত্রে ভালাে ওষুধ ব্যাসিলিনাম (Bacillinum)। - ডাঃ ফুবিস্টার (Foubister)



শিশুর বিছানায় প্রস্রাবের সমস্যায় বায়োকেমিক চিকিৎসা :
নেট্রাম ফস ( Natrum Phos):   ক্রিমিতে আক্রান্ত শিশুরা বিছানায় প্রস্রাব করলে  Natrum Pho– 3X ১/৪  বড়ি দিনে তিন বার বয়স অনুসারে সেব্য 

নেট্রাম সালফ ( Natrum Sulph):  শিশুরা বিছানায় প্রস্রাব করলে  নেট্রাম সালফ – 6x; ১/৪  বড়ি দিনে তিন বার বয়স অনুসারে সেব্য 

ক্যালকেরিয়া ফস (Calcarea phos): রক্ত শুন্য দুর্বল পুষ্টিহীন শিশুর  বিছানায় প্রস্রাব  বন্ধের জন্য (Calcarea phos)- 6x ev 12x,  ১ /৪  বড়ি দিনে তিন বার বয়স অনুসারে সেব্য

কেলি ফস (Kali phos): স্নায়ুবিক দুর্বল শিশুর জন্য কেলি ফস 3xবা 6x , ১ /৪  বড়ি দিনে তিন বার বয়স অনুসারে সেব্য। 

চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com


মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২

সর্দি-কাশি থেকে মুক্তির উপায় জেনেনিন

সর্দি-কাশি থেকে মুক্তির উপায় জেনেনিন

সর্দি-কাশি থেকে মুক্তির উপায়

 

সর্দি-কাশি থেকে মুক্তির উপায় :

শীত মৌসুমে খুশখুশে কাশি, সর্দি, গলা ব্যথা হতেই পারে। এ জন্য রং চা খেতে পারেন। আদা, লবঙ্গ, দারুচিনি, তুলসী, সামান্য লবণ ও মধু দিয়ে তৈরি লাল চা পান করলেও উপকার পাওয়া যাবে। একটু সচেতন হলেই এসব সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাবেন। ঠাণ্ডা, সর্দি-কাশিতে ঘরোয়া কিছু উপায় অবলম্বন করে ‘ঠাণ্ডা’কে দূরে রাখুন।


মধু : ত্বকের পাশাপাশি শরীরের জন্যও মধু বেশ উপকারী। গলার খুসখুসে ভাব কমিয়ে দ্রুত আরাম দেয়। মধু গরম বলে ঠাণ্ডা প্রতিরোধ করে। হালকা গরম পানির সঙ্গে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। এ ছাড়া আঙ্গুরের রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে এমন কি চা-এ চিনির পরিবর্তে মধু দিয়ে খেতে পারেন। বয়স্করা মধুর সঙ্গে এক চামচ দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে খেলেও বেশ উপকার পাবেন।



 

আদা : প্রাচীনকাল থেকেই ঠাণ্ডা, জ্বর, কাশি ও মাথাব্যথার জন্য আদার ব্যবহার হয়ে আসছে। আদা চা গলার কফ পরিষ্কার করে ও খুসখুসে ভাব কমায়। এ ছাড়াও আদা রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে কুসুম গরম করে দিনে তিনবার খান। দ্রুত কাশি নিরাময় হবে।


রসুন : রসুনে রয়েছে আলিসিন ও অন্যান্য অর্গানোসালফার উপাদান যা সংক্রমণকারী ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার বিনাশ করে। গলা বসে গেলে রসুন থেঁতো করে তাতে গরম পানি দিয়ে শরবত করে নিন। পাঁচ মিনিট পর মিশ্রণটি পান করুন, অতি দ্রুত ভালো ফিল করবেন।


লেবু : লেবুতে রয়েছে সাইট্রিক এসিড যা ঠাণ্ডার ভালো ওষুধ। লেবু চা খেতে পারেন। কুসুম গরম পানিতে মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে খেয়েই দেখুন ভালো ফিল করবেন। গলাব্যথা বা গলা বসে গেলে গরম পানিতে লেবুর রস ও সামান্য লবণ দিয়ে গড়গড়া করুন। এভাবে দিনে বেশ কয়েকবার করুন।


গোলমরিচ : গরম পানিতে এক চা চামচ গোলমরিচ গুঁড়ার সঙ্গে দুই চা চামচ মধু মিশিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিন। গোলমরিচের দানা নিচে জমা হলে ধীরে ধীরে পান করুন। অতি দ্রুত ঠাণ্ডা থেকে মুক্তি পাবেন।


পিয়াজের রস : পিয়াজের রস কাশি নিরাময় করে, এটি অনেকেরই অজানা। পিয়াজ রস করে তাতে মধু দিয়ে খেতে পারেন। এ ছাড়াও খাবারের সঙ্গে খেতে পারেন কাঁচা পিয়াজ।


লবঙ্গ : কয়েক টুকরা লবঙ্গ সেদ্ধ পানিতে সামান্য লবণ মিশিয়ে কুসুম গরম থাকতে খেয়ে নিন। এটি ভীষণ উপকারী। এ ছাড়াও লবঙ্গ ও আদা পানিতে ১৫ মিনিট সেদ্ধ করে সেই পানি দিয়ে গড়গড়া করলেও উপকার পাবেন।


হলুদ মিশ্রিত দুধ : হলুদে রয়েছে অ্যান্টিসেপটিক উপাদান যা বিভিন্ন ভাইরাসজনিত ইনফেকশন সারাতে কার্যকর। গরম দুধের সঙ্গে খানিকটা হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে রাতে ঘুমানোর আগে পান করলে সর্দি ও গলা ব্যথা থেকে অতি দ্রুত মুক্তি পাবেন।


চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com

চর্মরোগে  হোমিওপ্যাথিক চিকসা

চর্মরোগে হোমিওপ্যাথিক চিকসা


চর্মরোগে  হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

  

আমাদের ত্বক বা চামড়া হল আমাদের শরীরের সবচেয়ে বড় ইন্দ্রিয়। ত্বক আমাদের বিভিন্ন রকম কেমিক্যাল, ক্ষতিকারক তরঙ্গ, রোগ জীবাণু থেকে আমাদের রক্ষা করে। আমাদের শরীরের আভ্যন্তরীণ তাপের সমতা বজায় রাখে। আবার ত্বক আমাদের শরীরের সবথেকে সংবেদনশীল অংশ।তাই আমাদের শরীরে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কারনে বিভিন্ন চর্মরোগ- চুলকানি,একজিমা,দাদ দেখা দেয়। সমীক্ষায় জানা গেছে যে , জনসংখ্যার প্রায় ২০% থেকে ৩০% লোক কোন না কোন চর্মরোগে আক্রান্ত। একমাত্র হোমিওপ্যাথি ওষুধই এই চর্মরোগের স্থায়ী প্রতিকার করতে পারে। এখানে বিভিন্ন প্রকার উপসর্গ অনুযায়ী চুলকানি,একজিমা,দাদের হোমিও চিকিৎসা-এর (Homeopathic medicine for skin disease বিবরণ দেওয়া হল।

চর্মরোগ – চুলকানি,একজিমা,দাদের হোমিও চিকিৎসা

চর্ম রোগের হোমিও ঔষধ (চুলকানি,একজিমা)

খোস, প্যাঁচড়ায় অত্যন্ত চুলকানি, ঠোঁট ও অন্য স্থানে ফাটা ক্ষত, পুরাতন দাদ – Anthrakokali 200 |

চামড়ায় টোপতলা ফোস্কার মতো উদ্ভেদ। পায়ে কড়া, ক্ষত, পায়ের তলা ফাটা   Antim Crud 30 |

চামড়ায় আঁচিলের মতো বা ফোস্কার মতো উদ্ভেদ। ঘারে,মুখে,পিঠে, হাতে, বুকে উদ্ভেদ বেরোয় ও চুলকায়  Antim Crud 30 |

খোস, প্যাঁচড়া প্রতি বছর শীতকালে দেখা যায়  – Aloe Soc 30 |

  

হাতের চেটোয়, হাতে ও আঙ্গুলে চুলকানি – Anagallis 30 |

কপালে ও মাথায় বেশি উদ্ভেদ, খোস প্যাঁচড়ায় অত্যন্ত দুর্গন্ধ –  Arsenic Alb 6 |

গরমকালে শরীরে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র উদ্ভেদ, রোগী বেশ দুর্বল ও শীর্ণকায়, হাত পা ফাটা, গায়ের চামড়া কোঁচকান, নখ কুঁচকে ছোটো হয়ে যায়,নখে ক্ষত ও জ্বালা, অণ্ডকোষ ও লিঙ্গে চুলকানি – Sarsaparilla 30 |

হাতের চেটোর উল্টো পৃষ্টে একজিমা, চামড়া মোটা হয়,ফাটে, আঙ্গুলের চামড়া মোটা হয়, মুখে, কানের পেছনে, চোখের পাতায়, জননেন্দ্রিয়ে ফুস্কুড়ি কিংবা ঘায়ের মতো উদ্ভেদ,তা থেকে মধুর মতো চটচটে রস নিঃসরণ। উদ্ভেদ্গুলি মাছের আঁশের পদার্থ দিয়ে ঢাকা  – Graphites 200 । ওপরের এৎধঢ়যরঃবং এর মতো লক্ষণ তবে উদ্ভেদ গুলি শীতকালে বৃদ্ধি পায় ও গরমকালে আপনাতেই কমে যায়  – Petroleum 30|

  

চর্মরোগে অত্যন্ত চুলকানি,রক্ত পড়ে, জ্বালা করে ও তার জন্যে অনিদ্রা  – Coffea Crud 200 |

উদ্ভেদ প্রথমে ফোস্কার মতো,পরে পাকে, চুলকানি জলে ও ঠাণ্ডায় বাড়ে  – Croton Tig 200 |

আরও পড়ুনঃ শারীরিক দুর্বলতা ও যৌন সমস্যার হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা

চামড়ায় কোন প্রকার উদ্ভেদ নেই অথচ ভয়ানক চুলকানি  – Dolichos 30 |

চামড়া লালবর্ণ বা চামড়ায় লাল ডোরাডোরা দাগ । ঘামাচির মতো লালবর্ণের ফুস্কুড়ি ও তাতে অধিক চুলকানি  – Comocladia 30 |

সন্ধিস্থলে ও চামড়ার ভাঁজে রসপূর্ণ উদ্ভেদ ও তাতে অত্যন্ত দুর্গন্ধ ও চুলকানি। গায়ে সামান্য আঁচড় লাগলেই পাকে ও পুঁজ হয়  – Hepar Sulph 200 |

একজিমায় সর্বদা রস ও পুঁজ ঝরে,মামড়ি পড়ে,তাতে চুল জড়ে যায়। দাঁড়িতে একজিমা, কনুইয়ের নীচে, হাঁটুর নীচে ও অণ্ডকোষের একজিমায় এটা খুব উপকারী, জল লাগলে চুলকানি বাড়ে – Nat Mur 200 |মাথায় একজিমা,মামড়ি পড়ে,দুর্গন্ধ, উদ্ভেদ ক্রমশ মাথা হতে নিচের দিকে নামে  – Calcarea Carb 30 |

ঘাড়ে ও মাথার পেছনের অংশে ইরাপ্সান,খুব চুলকায়, রস পড়ে,ক্ষত হয়। হাতে একজিমা, শুক্লপক্ষে বাড়ে ও কৃষ্ণপক্ষে কমে  – Clematis Erecta 30 |

আরও পড়ুনঃ চুল সম্বন্ধীয় রোগের হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা

  

মাথায় ও কানের পেছনে উদ্ভেদ তাতে রস ঝরে ও খুব চুলকায়,রক্ত পড়ে, পোকা জন্মায়  – Oleander 30 |

গায়ের চামড়া দেখতে খুব কদাকার , গায়ে এতো দুর্গন্ধ যে স্নান করলেও গন্ধ যায় না। শরীর একটু গরম হলেই চুলকায়, রক্ত বেরোয় ও নানা রকমের উদ্ভেদ – Psorinum 200 |

চর্মরোগে অত্যন্ত চুলকানি, চুলকানোর সময় মহাসুখ, পরে ভীষণ জ্বালা। গায়ের চামড়া দেখতে খুব কদাকার,অপরিস্কার। চুলকানি রাতে, গরমে ও স্নানে বাড়ে  Sulpher 6|

আরও পড়ুনঃ অর্শের হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা

কাপড় খুললেই চুলকানি,আঁশের মতো শল্ক ওঠে, পুরাতন একজিমা – গরমে,চললে, কাপড় খুললে বাড়ে, সোরাসিস  – Kali Ars 30 |

স্ত্রী জননেন্দ্রিয়ে ছোটো ছোটো ফুস্কুড়ি ও তাতে অসহনীয় চুলকানি  – Sepia 200 |

যোনিতে ভীষণ চুলকানি, স্ত্রীলোকের প্রুরাইটিস, নাকের মধ্যে দানাদানা উদ্ভেদ নির্গমন ও চুলকানি – Fagopyrum 200 |

পুরুষ জননেন্দ্রিয়ে প্রুরাইটিস , অত্যন্ত চুলকানি, লিঙ্গমনি লালবর্ণ হয়ে ওঠে,অণ্ডকোষের চামড়া শক্ত, পুরু ও মোটা হয় – Caladium Segu 30 |

খোস , প্যাঁচড়া, চুলকানি এবং পারদ ও উপদংশজনিত চর্মরোগের উৎকৃষ্ট ওষুধ  – Echinacea Q |

আমবাতে ভয়ানক চুলকানি, জ্বালা ও কাঁটাবেঁধার মতো বেদনা থাকে,রোগি ক্রমাগত হাত বোলায়। হাতের, মুখের, বুকের চামড়া ফোলে, গরম হয়, ফুস্কুড়ি বেরোয়। ঘুমালে ফুস্কুড়ি মিলিয়ে যায় কিন্তু বিছানা থেকে উঠলে আবার বেরোয় – Urtica Urens 200|

হাতে ও পায়ের তালুতে ফোস্ক্,া সামান্য আঘাতে ক্ষত হয়,পাকে,মুখে ও গলায় ক্ষত হয়ে ছিদ্র হয়ে যায়, স্তনে কান্সারের মতো ক্ষত – Bufo Rana 200 |

খোস,প্যাঁচড়া,দাদ, সোরাসিস ও নিম্নাঙ্গের একজিমা   Acid Chryso 30 |

দাদের হোমিও চিকিৎসা

দাদ, তাতে খুব চুলকানি ও জ্বালা,একজিমায় পুরু হলদে-সাদা মামড়ি, তার ভেতরে ঘন হলদে পুঁজ। কোনও চর্মরোগে খুব চুলকানি, রাতে ও বিছানায় শুলে চুলকানি বাড়ে , চুলকানির পর খুব জ্বালা  – – Mezereum 30।

দাদ, মুখে দাদ, শরীরের নিম্নাঙ্গে দাদ, এছাড়াও শরীরের সমস্ত স্থানে দাদ হলে  – Tellurium 30  ।

শীতকালে গায়ে দাদের মতো উদ্ভেদ, চর্মরোগ সহ কোষ্টকাঠিন্য, চামড়া শুকনো,খসখসে,অত্যন্ত চুলকানি,রক্ত না বেরানো পর্যন্ত চুলকায়  –– Alumina 200 |

ছত্রাক ঘটিত রোগ যেমন দাদ , খেলোয়াড়দের পায়ের আঙুলের মধ্যে সংক্রমণ , গলার রোগ , কানে ব্যাথা, কানে চুলকানি , মহিলাদের যোনিতে ছত্রাক ঘটিত সংক্রমণ ইত্যাদিতে জার্মানির উৎ.জবপশববিম কোম্পানির জ৮২ খুব ভালো ফল দেয়।



চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com