সংবাদ শিরোনাম
লোডিং...
আমাদের উদ্দেশ্য মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে আলোচনা করা। এখানে মানুষ স্বাস্থ্য সম্পর্কে ধারণা পাবে।
Menu

বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১

যৌন রোগের উৎপত্তি ও হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

 যৌন রোগের উৎপত্তি ও হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা


দিন যত যাচ্ছে পৃথিবী জুড়েই যৌন রোগের প্রকোপ বৃদ্দি পাচ্ছে। এই যৌন রোগ থেকে ক্যান্সার, অন্ধত, জন্মগত ক্রুটি, এমনিকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পাবে। তাই যৌন রোগ ও এর কারণে সৃষ্ট অন্যান্য রোগ গুলোকে থেকে বাঁচতে হলে শুরুতে এর চিকিৎসা করা জরুরি।

সাধারণত যৌনঙ্গ থেকে তরল নি:সৃত হওয়া মুত্রে জ্বালাভাব, শারীরিক সম্পর্কে সময় ব্যাথা বা রক্তপাত, তলপেটে ব্যাথা, মলদ্বার দিয়ে রক্তপাত এবং সংক্রমণে সব উপসর্গেও কোনোটি দেখলে অবশ্যই যৌন রোগের পরীক্ষা করানো উচিত।


এছাড়া এ বিষয়ে দ্রুত  চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। করণ বেশির ভাগ যৌন রোগই উপযুক্ত চিকিৎসায় সম্পূর্ণ সেওে ওঠে। কিন্ত চিকিৎসায় অবহেলা করণে তা ভবিস্যতে রোগের শঙ্কা বাড়িয়ে দিতে পারে।

আজ যৌন রোগ নিয়ে বিশষে কলাম লিখেছেন, ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না), আরোগ্য হোমিও হল, বিএসএস, ডিএইচএমএস (ঢাকা) সুস্থ শরীর নিয়ে অনন্দময় হয়ে উঠবে, অর্থাৎ আমাদের লাইফ স্টাইল কী হবে? লাইফ স্টাইল হল অভ্যাস, দৃষ্টিভঙ্গি, পছন্দ, সামাজিক এবং রাজনৈতিক চিন্তা-ভাবনা, সংস্কৃতি , সর্বোপরি অর্থনৈতিক অবস্থা, এই সব মিলিয়ে হল লাইফ স্টাইল।

এই আনন্দময় জীবনযাবন থেকেই সৃষ্টি, বর্তমানে যৌন সমম্যা, যা একটি মারাত্নক সম্যাসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। যত দিন যাচ্ছে এ রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এই সমস্ত রোগীদেও চিকিৎসা নিয়ে আছে অনেক জটিলতা। দেশের আনাচে-গড়ে উছেছে বিভিন্ন চমকপ্রদ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান।

অনেকেই এসব রং বেরঙ্গেও প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসা নিয়ে হচ্ছেন প্রতারিত। আমার কাছে অনেক রোগীরা আসে তাদের কথা শুনে মনে হচ্ছে অনেকে এ রোগ নিয়ে খুবই উদ্বেগে আছেন। অনেকে এ সম্যাসা নিয়ে বিচলিত। কোথায় গেলে ভালো চিকিৎসা পাবে তা কেই বুঝতে পারছে না।


আসলে যৌন সম্যাসা কোন সমস্যা নয়। একটু বুঝে চললে আর জীবন টাকে নিয়মের ভেতওে আনলে এই রোগ কোন রোগই নয়। তবে জীবন চলার পথে কিছু সমস্যা থাকে, আমারা নিজেরাই কিছু সমস্যা শরীরে সৃষ্টি করি। যার ফলে আমরা হতাশায় ভুগী আর ভাবি এ রোগের কোন চিকিৎসা নেই।

কিন্ত এখনো যদি আমারা জীনটাকে সুন্দও করে সাজাতে পারি আর সমাস্যার কারণে ভালো কোনো অর্গানন অনুসরণকারী হোমিও চিকিৎসকের সরণাপন্ন হই, তাহলে আমারা একটি সুন্দও সুখী নীড় তৈরি করতে পারবো। আজকাল রাস্তাঘাটে চলাফেরা করলে দেখি বাহারি রঙ্গের বাহারি সব চিকিৎসা পোস্টা বা সাইনবোর্ড দেখতে পাই। 

তারা সাতদিনের ভেতর সব ঠিক করে দেবে বলে চ্যালেঞ্জ, গ্যারান্টি, দিয়ে প্রচারপত্র বিলি করে। নিরীহ সাধারণ মানুষকে আকর্ষণ করার লক্ষে পোস্টাররেড় বিফলে মুল্যফেরত, জীবনের শেষ চিকিৎসা এসব কথা উল্লেখ করতেও দ্বিধাবোধ করেনা। আসলে মুল কথা হলো আমাদের দেশের বেশির ভাগ পুরুষ এই সমস্যায় ভুগছেন।

মেয়েদের ভেথরেরও এ সম্যাসা আছে তবে খুব কম। আমার চিকিৎসা করার সময় দেখি মেয়েদের সংখ্যা অনেক কম এ হিসেবে “সেক্স” সমস্যাটা কিছুই না। তবে বিষেষ কিছু কারণে সম্যাসা হয়ে থকে। মুলত যে সব করণে সমস্যা হয়ে থাকে সেগুলো হচ্ছে মানসিক সুশ্চিন্তা, মানসিক হতাসা, মানসিক ভীতি। 




* অতিরিক্ত হস্তমৈথুন।

* সময়মতো বিয়ে না করা।

* যৌনশক্তি বাড়ানোর নামে ‘ওয়ান টাইম মেডিসিন’ সেবন করা।

*  অতিরিক্ত ধূমপান করা।

৬. স্বামী-স্ত্রীর মাঝে বহুদিন সম্পর্ক ছিন্ন থাকা।

* দীর্ঘদিন যাবৎ কঠিন আমাশয় ও গ্যাস্ট্রিক রোগে ভুগা।

*  সঙ্গদোষ অর্থাৎ খারাপ বন্ধুদের কারণে খারাপ কাজে সম্পৃক্ত হওয়া, পর্নো মুভি দেখা ও এ জাতীয় চিন্তা করা।

* অতিরিক্ত স্বপ্নদোষ হওয়া।

*  ডায়াবেটিস হওয়ার কারণে।

* মোটা হওয়ার কারনে।

* পরিবারে উদাসীনতা, যারা কায়িক পরিশ্রম করে মানে অলস যারা।

* প্রেম করে বিয়ের আগে অবাধ মেলামেশা করা।

* কোনো অনুশাসন না মেনে চলা। মূলত এসব কর্মকাÐে আরও সমস্যা আছে। তবে এই সমস্যাগুলো আমরা চিকিৎসা করার সময় রোগীদের মাঝে দেখি। যতই গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা হোক না কেন, হোমিওপ্যাথি লক্ষণ দিয়ে চিকিৎসা দিতে পারলে এই রোগী আরোগ্য হওয়া সম্ভব।

হামিওপ্যাথি ঔষধে সমাধান : রোগ নয় রোগীকে চিকিৎসা করা হয়। যৌন সমস্যার রোগীদেরকে একজন অভিজ্ঞ অর্গানন অনুসরণকারী  চিকিৎসক নির্বাচন করতে হবে যিনি সঠিক লক্ষণ অথবা ‘মাইজমেটিক’ অনুসরণ করে চিকিৎসাসেবা দেন, তাহলে  হোমিওপ্যাথিতে আরোগ্য হওয়া সম্ভব।

কিন্তু আফসোসের বিষয় অনেক হোমিও চিকিৎসক ও হোমিও কলেজগুলোর শিক্ষক রোগীদেরকে পেটেন্ট, টনিক, মিশ্র প্যাথি দিয়ে চিকিৎসা দেয় আর  নিজেদেরকে ‘ক্ল্যাসিকাল হোমিওপ্যাথ’ বলে থাকেন। এসব ডাক্তারদেরকে ডা. স্যামুয়েল হ্যানিমান বলে থাকেন শঙ্কর জাতের হোমিওপ্যাথ। তাই নিজেদেরকে যদি হ্যানিমেনের উত্তরসূরী দাবি করে থাকি তাহলে সঠিক লক্ষণ দিয়ে চিকিৎসা দিতে হবে।

অভিজ্ঞ চিকিৎসকরা যে সব মেডিসিন ব্যবহার করে থাকে, এসিডফস, এগনাস কাস্ট, অসগোন্ধা, ক্যালাডিয়াম স্যাংক, ডামিয়ানা, জিনসিং, নুপারলোটিয়াম, নাক্সবোম, লাইকোফোডিয়াম, সিলিনিয়ামসহ অসংখ্য হোমিও মেডিসিন লক্ষণের ওপর আসতে পারে।

যোগাযোগ -

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com


শেয়ার করুন

Author:

Etiam at libero iaculis, mollis justo non, blandit augue. Vestibulum sit amet sodales est, a lacinia ex. Suspendisse vel enim sagittis, volutpat sem eget, condimentum sem.

0 coment rios: