homeopathic (আরোগ্য হোমিও হল)

সংবাদ শিরোনাম
লোডিং...
Menu

মঙ্গলবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

বাত-গেঁটেবাতের ড্রপ NL - 11

বাত-গেঁটেবাতের ড্রপ NL - 11




রাক্স টক্স ড্রপ

NL - 11

রোগ লক্ষণ : বাত বেদনা 

বিশেষ রোগ লক্ষণ : নুতুন এবং পুরাতন মাংসপেশী ব্যথা (Mialgia) কোমরে ব্যথা, পানিতে বা বৃষ্টিতে ভেজার পর বাত বেদনা, মচকানো বেদনা, অত্যাধিক টান ধরা, অঙ্গ-প্রত্যাঙ্গে ব্যাথা। অজানা কারণে পিঠে ও কোমরে ব্যথা। পেশী এবং হাঁড় এ ক্রমবর্ধমান ব্যথা। ভিজে যাওয়া থেকে, ঠান্ডা আসনে বসার করণে ব্যথা (Sciatica) পুরাতন দীর্ঘ স্থায়ী অঙ্গ বিকৃতিসহ সন্ধিবাত। মেরুদণ্ড ও এর সন্ধিসমুহে বাত বেদনা (Spondyloarthnits)  মেরুদণ্ড ক্ষয় (Spondylosis) স্যাকো-ইলিয়াক সন্ধিবাত (Sacroiliac arthritis) তাপমাত্রা (আর্দ্রতা) পরিবর্তনের সাথে বাত জনিত ব্যথা জনিত ব্যথা, পেশী, সন্ধি, সন্ধিবন্ধনী (Liganents) বৃদ্ধি পায়। প্রথ্যঙ্গ ( Limbs) ও সন্ধির (Joints) স্নায়বিক বাত, দুর্বলতা, এবং অনমনীয়তা ইত্যাদি।

বিশেষ ক্রিয়া স্থান : বাত-গেঁটেবাত প্রবণতা।


 
উপাদান : রাস টক্সিকোনডেন্ড্রন (Rhus Toxicodendron) Berbis, Calcarea Phoshoricum, Causticum, Hahemammi, Rhodoendron এবং অন্যান্য সহায়ক উপদান দিয়ে তৈরি হোমিওপ্যাথিক ঔষধ।
সেবন বিধি : ১০ থেকে ১৫ ফোটা ৩ থেকে ৪ বার সামান্য পানি সহ অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের নির্দে অনুযায়ী সেব্য।

তীব্র ব্যথার ( Lumbago, Sciatica)  ক্ষেত্রে: ১০ ফোটা ঔষধ কিছু পরিমান পানিতে বিশিয়ে প্রতি ১/২ থেকে ১ থেকে ২ ঘন্টা পর পর। সাধারণত ১ থেকে ২ দিনের পরে উন্নতি শুরু হয়। তারপরে পূর্ণ অরোগ্য না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন ৩ থেকে ৪ ঘন্টা পর পর ১০ ফোটা ঔষধ সেবন করুণ। লক্ষণসহমূহ সম্পূর্ণ দূরীভ’ত হলে পুনরাবৃত্তি বোধ করতে কিছুদিনের জন্য প্রতিদিন ১০ ফোটা ঔষধ ৩ বার সবন করুণ। 

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :  এই ঔষধে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া  পরিলক্ষিত হয় নাই। ঔষধ সেবন করার পর যে কোন বিরুপ প্রতিক্রিয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। সাবধানাতা : শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন। অতিরিক্ত ডোজ পরিহার করুণ। শুধু মাত্র রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে সেব্য। পরিবেশনা : ৩০ মিলি বতল।


                                                             রাক্স টক্স ড্রপ
চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com





অনিয়মিত ঋতু স্রাবের ড্রপ NL -10

অনিয়মিত ঋতু স্রাবের ড্রপ NL -10



অনিয়মিত ঋতু স্রাবের ড্রপ


NL -10
সেপিয়া 

রোগ লক্ষণ : মহিলাদের অনিয়মিত ঋতুস্রাব, মাকিকের সমস্যা। ঋতু ও রজোবন্ধজনিত সমস্যা (Climacteic Complaints/ Postmenopausalsyndrome).

শারীরিক দুর্বলতা, মানসিক অবসাদ। যোনিতে চুলকানি (Pruitus vulvae)  হরমোন এর প্রভাব ইত্যাদি লক্ষনে ব্যাবহার করা যাবে। 


ঔষধ তৈরি : সেপিয়া,  (Sepia), Acidum Solphuricm, Cimiclfuga, Sanguinaria,  এবং অন্যান্য সহায়ক উপদান দিয়ে হোমিওপ্যথিক ঔষধ।

সেবনবিধি : ১০ থেকে ১৫ ফোটা দিনে ৩ থেকে ৪ বার সমান্য পানি সহ অথবা রেজিষ্টার্ড হোমিওপ্যথিক চিকিৎসকের নির্দেশ অনুযায়ী সেবন করিতে হবে। 


পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয় নাই। ঔষধ সেবন করার পর যে কোন বিরুপ প্রতিক্রিয়া হলে চিকিৎকের পরামর্শ নিন। 

সাবধানতা : শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

অতিরিক্ত ডোজ পরিহার করুণ। শুধু মাত্র রেজিষ্টার্ড চিকিৎকের পরামর্শে ঔষধ বেন করুণ। গর্ভবস্থায় ঔষধটি সেবন পরিহার করুণ। 

পরিবেশনা : ৩০ মিলি বোতল।



                                                     অনিয়মিত ঋতু স্রাব ড্রপ

চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com

শনিবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

হৃদরোগে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

হৃদরোগে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা



হৃদরোগে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা :

চিকিৎসা বিজ্ঞানকে যিনি রোগের নামের গোলামী থেকে মুক্তি দিয়েছেন তার নাম হ্যানিম্যান। এই কৃতিত্বের দাবীদার একমাত্র তিনি। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা রোগের যত কঠিন কঠিন নামই দেন না কেন, তাতে একজন হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের ভয় পাওয়ার বা দুঃশ্চিন্তা করার কিছু নাই। রোগের লক্ষণ এবং রোগীর শারীরিক-মানসিক বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী ঔষধ দিতে থাকুন। রোগের নাম যাই হোক না কেন, তা সারতে বাধ্য। হ্যানিম্যান তাই শত-সহস্রবার প্রমাণ করে দেখিয়ে দিয়ে গেছেন। রোগীর মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পযর্ন্ত সমস্ত লক্ষণ সংগ্রহ করুন এবং তার মনের গহীনে অন্তরের অলিতে-গলিতে যত ঘটনা-দুর্ঘটনা জমা আছে, তার সংবাদ জেনে নিন। তারপর সেই অনুযায়ী ঔষধ নির্বাচন করে খাওয়াতে থাকুন। হৃদরোগ বাপ বাপ ডাক ছেড়ে পালাবে। রোগের নাম নিয়ে অযথা সময় নষ্ট করার কোন দরকার নাই। হোমিও চিকিৎসায় যদি আপনার হৃদরোগ নির্মূল না হয় (অথবা কোন উন্নতি না হয়), তবে হোমিওপ্যাথির ওপর বিশ্বাস হারাবেন না। কেননা এটি সেই হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের ব্যর্থতা।

যদিও সমগ্র লক্ষণ অনুসারে নির্বাচিত যে-কোন হোমিওপ্যাথিক ঔষধেই যে-কোন হৃদরোগ নিরাময় হয়ে যায়, তথাপিও এমন কিছু হোমিওপ্যাথিক ঔষধ আছে যারা হোমিওপ্যাথিতে হৃদরোগের চিকিৎসায় বেশী বেশী ব্যবহৃত হয়। তাদের মধ্যে আছে Adonis vernalis, Amylenum nitrosum, Arnica montana, Cactus grandiflorus, Convallaria majalis, Crataegus oxyacantha, Digitalis purpurea, Iberis amara, Kalmia Latifolia, Lachesis mutus, Latrodectus mactans, Laurocerasus, Lilium tig, Lycopus virginicus, Naja tripudians, Natrum muriaticum, Aurum metallicum, vanadium, Spigelia anthelmintica  ইত্যাদি।
কাজেই হৃদরোগ চিকিৎসায়ও আমাদের সকলেরই উচিত প্রথমে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা অবলম্বন করা। কেননা অন্যান্য চিকিৎসা বিজ্ঞানের তুলনায় কমপক্ষে একশ ভাগ কম খরচে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় হৃদরোগ থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব। অপরদিকে অন্যান্য জাতীয় ঔষধ এবং অপারেশন বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই হৃদরোগীর মৃত্যুকে দ্রুত ডেকে আনে। সে যাক, হৃদরোগ চিকিৎসায় ভালো নামডাকওয়ালা বিশেষজ্ঞ হোমিও ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হওয়া উচিত। কেননা সাধারণ হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারদের দ্বারা হৃদরোগের চিকিৎসা সফল হওয়ার সম্ভাবনা নাই ; বরং হোমিওপ্যাথিতে প্রচণ্ড দক্ষতা আছে এমন চিকিৎসক প্রয়োজন।

Crataegus oxyacantha : হোমিওপ্যাথিতে প্রচলিত হৃদরোগের ঔষধগুলোর মধ্যে ক্রেটিগাস ঔষধটি হলো হার্টের জন্য ভিটামিন / টনিকের মতো যার তেমন কোন সাইড-ইফেক্ট নাই। এটি একাই শতকরা ৯৫% ভাগ হৃদরোগ নিরাময়ের ক্ষমতা রাখে। আজ থেকে একশ বছর পূরবে আয়ারল্যান্ডের ডাঃ গ্রীন নামক একজন হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞানী এটি আবিষ্কার করেন। তিনি শুধু এই একটি ঔষধ দিয়ে এত এত হৃদরোগী আরোগ্য করেছিলেন যে, সারা পৃথিবীতে হৃদরোগের শ্রেষ্ঠ চিকিৎসক হিসেবে তার নাম ছড়িয়ে পড়েছিল এবং দুনিয়ার সকল প্রান্ত থেকে হৃদরোগীরা পঙপালের ন্যায় আয়ারল্যান্ডে ছুটে যেতো।তিনি নিম্নশক্তিতে পাঁচ ফোটা করে রোজ ৪ বার করে খাইয়ে অধিকাংশ হৃদরোগীকে রোগমুক্ত করতে সক্ষম হতেন।

Aurum metallicum :  ব্রিটিশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডাঃ বানের্ট অগণিত জটিল হৃদরোগীকে আরোগ্য করে প্রমাণ করে দেখিয়েছেন যে, স্বর্ণ থেকে প্রস্তুত এই হোমিওপ্যাথিক ঔষধটি হৃদরোগের একটি অতি প্রয়োজনীয় এবং সেরা ঔষধ। অরাম মেটের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলো দুই-তিন সেকেন্ডের জন্য মনে হয় হৃৎপিন্ড বন্ধ হয়ে গেছে, তারপর আবার খুব জোরে চলতে শুরু করেছে, বুক ধড়ফড়ানি, নাড়ির গতি দ্রুত-ক্ষীন এবং অনিয়মিত, হৃৎপিন্ডের আকৃতি বৃদ্ধি পাওয়া (Hypertrophy),  হার্টের ভালবের বা পেশীর বিকৃতি (Valvular lesions of arterio-sclerotic nature), রক্তনালীর প্রাচীর মোটা হওয়া (Arterio-sclerosis), উচচ রক্ত চাপ (increased blood pressure), হৃদরোগের কারণে শরীরে পানি নামা (Ascites), হৃৎপিন্ডের বৈদ্যুতিক ভল্টেজ কমে যাওয়া (pacemaker), বিষন্নতা বা দুঃখবোধ (depression), হতাশা, আত্মহত্যার ইচ্ছা ইত্যাদি ইত্যাদি। সাধারণত রোগীর বা তাহার পিতা-মাতা-স্বামীর অতীতে সিফিলিস রোগ হয়ে থাকলে অরাম মেট দারুন ফল দেবে। মোটামুটি বলা যায়, অরাম মেট একাই এ যুগের বহুল প্রচলিত হৃদরোগসমূহের শতকরা ৯৫% ভাগ হৃদরোগ নিরাময়ের ক্ষমতা রাখে।

Digitalis purpurea :  জর্জ ভিথুলকাসের মতে, কোন হৃদরোগীর নাড়ির গতি যদি মিনিটে ৫০ বার অথবা তারও কম হয়, তবে তাকে নিশ্চিতভাবেই ডিজিটালিস খাওয়াতে হবে। কেননা ইহা ডিজিটালিসের একেবারে স্প্যাসিফিক লক্ষণ । তার হৃদরোগের নাম যা-ই হোক না কেন, সেটি অবশ্যই সেরে যাবে। অবশ্য হৃদরোগ না হয়ে যদি লিভার, কিডনী, মস্তিষ্ক, পাকস্থলী বা চর্মরোগ যাই হোক না কেন, নিরাময় হতে বাধ্য । ডিজিটালিসের অন্যান্য লক্ষণের মধ্যে আছে নাড়িরগতি দুর্বল, অনিয়মিত, বিরতিযুক্ত, খুবই ধীরগতি সম্পন্ন, শরীরের বাইরের এবং ভেতরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পানি নামা / শোথ (dropsy),  মায়োকার্ডিয়ামের বৃদ্ধি (dilatation of the myocardium), অরিকুলার ফ্লুটার এন্ড ফিব্রিলেশান (auricular flutter and fibrillation),  হার্ট ব্লক (Heart block),মাইট্রাল ডিজিজ (mitral disease), অত্যন্ত দুর্বলতা, অল্পতে বেহুঁশ হওয়া, চামড়া ঠান্ডা, শ্বাস-প্রশ্বাস অনিয়মিত, জন্ডিস, মুখমন্ডল নীলচে, সামান্য নড়াচড়াতেই ভীষণ বুক ধড়ফড়ানি, নড়লেই মনে হয় হৃৎপিন্ড বন্ধ হয়ে যাবে, পেরিকার্ডাইটিস (Pericarditis), ইত্যাদি ইত্যাদি।

Lachesis mutus :  কারো হৃদরোগের কষ্টগুলো যদি ঘুমালে বেড়ে যায়, অর্থাৎ নিদ্রা গেলে বৃদ্ধি পায়, তবে তাকে ল্যাকেসিস খাওয়াতে হবে। তার হৃদরোগের নাম যা-ই হোক না কেন, তার নিশ্চিত রোগমুক্তি আশা করতে পারেন।

Adonis vernalis : সাধারণত বাতের আক্রমণ, ইনফ্লুয়েঞ্জা বা ব্রাইটস ডিজিজের পরে হৃদরোগ দেখা দিলে তাতে এডোনিজ প্রযোজ্য। ইহার প্রধান প্রধান লক্ষণ হলো হৃদপেশীর ফ্যাটি ডিজেনারেশান (fatty degeneration), হৃদরোগের কারণে শরীরে পানি নামা (fatty degeneration),  দুর্বল হার্ট এবং দুর্বল নাড়ি, মাইট্রাল এবং এওরটিক রিগারজিটেশান (Mitral and aortic regurgitation), এওরটার পুরাতন প্রদাহ (Chronic aortitis),ফ্যাটিহার্ট পেরিকার্ডাইটিস(Fatty heart pericarditis),  বাতজনিত এন্ডোকার্ডাইটিস (Rheumatic Endocarditis), হৃৎপিন্ডে ব্যথা (Preæcordial pain),বুক ধড়ফড়ানি (palpitation), শ্বাসকষ্ট (dyspnœa), হৃদরোগজনিত হাঁপানি (Cardiac asthma),  মায়োকার্ডাইটিস (Myocarditis)  ইত্যাদি।হার্টের ভাল্বের সমস্যায় ইহা ব্যবহৃত হয়ে থাকে ।


হৃদরোগ নিরাময়ে যাদুকরী কয়েকটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধঃ 
চিকিৎসা বিজ্ঞানকে যিনি রোগের নামের গোলামী থেকে মুক্তি দিয়েছেন তার নাম হ্যানিম্যান। এই কৃতিত্বের দাবীদার একমাত্র তিনি। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞরা রোগের যত কঠিন কঠিন নামই দেন না কেন, তাতে একজন হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের ভয় পাওয়ার বা দুঃশ্চিন্তা করার কিছু নাই। রোগের লক্ষণ এবং রোগীর শারীরিক-মানসিক বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী ঔষধ দিতে থাকুন। রোগের নাম যাই হোক না কেন, তা সারতে বাধ্য। হ্যানিম্যান তাই শত-সহস্রবার প্রমাণ করে দেখিয়ে দিয়ে গেছেন। রোগীর মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পযর্ন্ত সমস্ত লক্ষণ সংগ্রহ করুন এবং তার মনের গহীনে অন্তরের অলিতে-গলিতে যত ঘটনা-দুর্ঘটনা জমা আছে, তার সংবাদ জেনে নিন। তারপর সেই অনুযায়ী ঔষধ নির্বাচন করে খাওয়াতে থাকুন। হৃদরোগ বাপ বাপ ডাক ছেড়ে পালাবে। রোগের নাম নিয়ে অযথা সময় নষ্ট করার কোন দরকার নাই। হোমিও চিকিৎসায় যদি আপনার হৃদরোগ নির্মূল না হয় (অথবা কোন উন্নতি না হয়), তবে হোমিওপ্যাথির ওপর বিশ্বাস হারাবেন না। কেননা এটি সেই হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের ব্যর্থতা।
যদিও সমগ্র লক্ষণ অনুসারে নির্বাচিত যে-কোন হোমিওপ্যাথিক ঔষধেই যে-কোন হৃদরোগ নিরাময় হয়ে যায়, তথাপিও এমন কিছু হোমিওপ্যাথিক ঔষধ আছে যারা হোমিওপ্যাথিতে হৃদরোগের চিকিৎসায় বেশী বেশী ব্যবহৃত হয়। তাদের মধ্যে আছে Adonis vernalis, Amylenum nitrosum, Arnica montana, Cactus grandiflorus, Convallaria majalis, Crataegus oxyacantha, Digitalis purpurea, Iberis amara, Kalmia Latifolia, Lachesis mutus, Latrodectus mactans, Laurocerasus, Lilium tig, Lycopus virginicus, Naja tripudians, Natrum muriaticum, Aurum metallicum, vanadium, Spigelia anthelmintica  ইত্যাদি।

কাজেই হৃদরোগ চিকিৎসায়ও আমাদের সকলেরই উচিত প্রথমে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা অবলম্বন করা। কেননা অন্যান্য চিকিৎসা বিজ্ঞানের তুলনায় কমপক্ষে একশ ভাগ কম খরচে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসায় হৃদরোগ থেকে মুক্ত হওয়া সম্ভব। অপরদিকে অন্যান্য জাতীয় ঔষধ এবং অপারেশন বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই হৃদরোগীর মৃত্যুকে দ্রুত ডেকে আনে। সে যাক, হৃদরোগ চিকিৎসায় ভালো নামডাকওয়ালা বিশেষজ্ঞ হোমিও ডাক্তারের স্মরণাপন্ন হওয়া উচিত। কেননা সাধারণ হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারদের দ্বারা হৃদরোগের চিকিৎসা সফল হওয়ার সম্ভাবনা নাই ; বরং হোমিওপ্যাথিতে প্রচণ্ড দক্ষতা আছে এমন চিকিৎসক প্রয়োজন।

Crataegus oxyacantha :  হোমিওপ্যাথিতে প্রচলিত হৃদরোগের ঔষধগুলোর মধ্যে ক্রেটিগাস ঔষধটি হলো হার্টের জন্য ভিটামিন / টনিকের মতো যার তেমন কোন সাইড-ইফেক্ট নাই। এটি একাই শতকরা ৯৫% ভাগ হৃদরোগ নিরাময়ের ক্ষমতা রাখে। আজ থেকে একশ বছর পূরবে আয়ারল্যান্ডের ডাঃ গ্রীন নামক একজন হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞানী এটি আবিষ্কার করেন। তিনি শুধু এই একটি ঔষধ দিয়ে এত এত হৃদরোগী আরোগয করেছিলেন যে, সারা পৃথিবীতে হৃদরোগের শ্রেষ্ঠ চিকিৎসক হিসেবে তার নাম ছড়িয়ে পড়েছিল এবং দুনিয়ার সকল প্রান্ত থেকে হৃদরোগীরা পঙপালের ন্যায় আয়ারল্যান্ডে ছুটে যেতো।তিনি নিম্নশক্তিতে পাঁচ ফোটা করে রোজ ৪ বার করে খাইয়ে অধিকাংশ হৃদরোগীকে রোগমুক্ত করতে সক্ষম হতেন।

Aurum metallicum :  ব্রিটিশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসাবিজ্ঞানী ডাঃ বানের্ট অগণিত জটিল হৃদরোগীকে আরোগ্য করে প্রমাণ করে দেখিয়েছেন যে, স্বর্ণ থেকে প্রস্তুত এই হোমিওপ্যাথিক ঔষধটি হৃদরোগের একটি অতি প্রয়োজনীয় এবং সেরা ঔষধ। অরাম মেটের প্রধান প্রধান লক্ষণ হলো দুই-তিন সেকেন্ডের জন্য মনে হয় হৃৎপিন্ড বন্ধ হয়ে গেছে, তারপর আবার খুব জোরে চলতে শুরু করেছে, বুক ধড়ফড়ানি, নাড়ির গতি দ্রুত-ক্ষীন এবং অনিয়মিত, হৃৎপিন্ডের আকৃতি বৃদ্ধি পাওয়া (Hypertrophy),  হার্টের ভালবের বা পেশীর বিকৃতি (Valvular lesions of arterio-sclerotic nature), রক্তনালীর প্রাচীর মোটা হওয়া (Arterio-sclerosis),  উচচ রক্ত চাপ (increased blood pressure), হৃদরোগের কারণে শরীরে পানি নামা (Ascites),  হৃৎপিন্ডের বৈদ্যুতিক ভল্টেজ কমে যাওয়া (pacemaker), বিষন্নতা বা দুঃখবোধ (depression),  হতাশা, আত্মহত্যার ইচ্ছা ইত্যাদি ইত্যাদি। সাধারণত রোগীর বা তাহার পিতা-মাতা-স্বামীর অতীতে সিফিলিস রোগ হয়ে থাকলে অরাম মেট দারুন ফল দেবে। মোটামুটি বলা যায়, অরাম মেট একাই এ যুগের বহুল প্রচলিত হৃদরোগসমূহের শতকরা ৯৫% ভাগ হৃদরোগ নিরাময়ের ক্ষমতা রাখে।

Digitalis purpurea :  জর্জ ভিথুলকাসের মতে, কোন হৃদরোগীর নাড়ির গতি যদি মিনিটে ৫০ বার অথবা তারও কম হয়, তবে তাকে নিশ্চিতভাবেই ডিজিটালিস খাওয়াতে হবে। কেননা ইহা ডিজিটালিসের একেবারে স্প্যাসিফিক লক্ষণ । তার হৃদরোগের নাম যা-ই হোক না কেন, সেটি অবশ্যই সেরে যাবে। অবশ্য হৃদরোগ না হয়ে যদি লিভার, কিডনী, মস্তিষ্ক, পাকস্থলী বা চর্মরোগ যাই হোক না কেন, নিরাময় হতে বাধ্য । ডিজিটালিসের অন্যান্য লক্ষণের মধ্যে আছে নাড়িরগতি দুর্বল, অনিয়মিত, বিরতিযুক্ত, খুবই ধীরগতি সম্পন্ন, শরীরের বাইরের এবং ভেতরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পানি নামা / শোথ (dropsy), মায়োকার্ডিয়ামের বৃদ্ধি (dilatation of the myocardium), অরিকুলার ফ্লুটার এন্ড ফিব্রিলেশান (auricular flutter and fibrillation), , হার্ট ব্লক (Heart block), মাইট্রাল ডিজিজ (mitral disease),  অত্যন্ত দুর্বলতা, অল্পতে বেহুঁশ হওয়া, চামড়া ঠান্ডা, শ্বাস-প্রশ্বাস অনিয়মিত, জন্ডিস, মুখমন্ডল নীলচে, সামান্য নড়াচড়াতেই ভীষণ বুক ধড়ফড়ানি, নড়লেই মনে হয় হৃৎপিন্ড বন্ধ হয়ে যাবে, পেরিকার্ডাইটিস (Pericarditis), ইত্যাদি ইত্যাদি।

Lachesis mutus : কারো হৃদরোগের কষ্টগুলো যদি ঘুমালে বেড়ে যায়, অর্থাৎ নিদ্রা গেলে বৃদ্ধি পায়, তবে তাকে ল্যাকেসিস খাওয়াতে হবে। তার হৃদরোগের নাম যা-ই হোক না কেন, তার নিশ্চিত রোগমুক্তি আশা করতে পারেন।

Adonis vernalis :  সাধারণত বাতের আক্রমণ, ইনফ্লুয়েঞ্জা বা ব্রাইটস ডিজিজের পরে হৃদরোগ দেখা দিলে তাতে এডোনিজ প্রযোজ্য। ইহার প্রধান প্রধান লক্ষণ হলো হৃদপেশীর ফ্যাটি ডিজেনারেশান (fatty degeneration),  হৃদরোগের কারণে শরীরে পানি নামা (cardiac dropsy), , দুর্বল হার্ট এবং দুর্বল নাড়ি, মাইট্রাল এবং এওরটিক রিগারজিটেশান (Mitral and aortic regurgitation), এওরটার পুরাতন প্রদাহ (Chronic aortitis), ফ্যাটিহার্ট পেরিকার্ডাইটিস (Fatty heart pericarditis), বাতজনিত এন্ডোকার্ডাইটিস (Rheumatic Endocarditis), হৃৎপিন্ডে ব্যথা (Preæcordial pain), বুক ধড়ফড়ানি (palpitation), শ্বাসকষ্ট (dyspnœa), হৃদরোগজনিত হাঁপানি (Cardiac asthma),  মায়োকার্ডাইটিস (Myocarditis) ইত্যাদি।হার্টের ভাল্বের সমস্যায় ইহা ব্যবহৃত হয়ে থাকে ।

Arnica montana :  আর্নিকা হৃৎপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে ভালো ঔষধ। যাদের ঘনঘন বুকে ব্যথা উঠে অথবা যাদের একবার হার্ট এটাক (স্ট্রোক) হয়েছে, তাদের সব সময় আর্নিকা ঔষধটি পকেটে নিয়ে চলাফেরা করা উচিত। এটি আপনাকে হার্ট এটাকে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে যাওয়া বা অকাল মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করবে।
Latrodectus mactans :  হৃৎপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে ভালো ঔষধ হলো লেট্রোডেক্টাস ম্যাকটেনস (Latrodectus mactans) বিশেষত ব্যথা যখন বাম হাতের দিকে ছড়াতে থাকে। মনে হয় কেউ যেন শক্ত হাতে গলা চেপে ধরেছে ; দম বন্ধ হয়ে এখনই মারা যাবে।

Amylenum nitrosum :  এটি হৃৎপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে কমন ঔষধ। এটি হৃৎপিন্ড এবং শরীরের ওপরের অংশের রক্তনালীকে প্রসারিত করার মাধ্যমে বুকের ব্যথা নিরাময় করে।
Glonoine :  গ্লোনইন হলো হৃৎপিন্ডের ব্যথার এক নাম্বার ঔষধ যা সুনির্দিষ্ট কোন লক্ষণ ছাড়াই দেওয়া যায়। পাশাপাশি এটি হাই ব্লাড প্রেসারেরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ।

Cactus grandiflorus :  ইহাও হৃৎপিন্ডের রোগের একটি উল্লেখযোগ্য ঔষধ। ইহার প্রধান লক্ষণ হলো মনে হবে হৃৎপিন্ডকে কেউ তার লোহার হাত দিয়ে এমনভাবে চেপে ধরেছে যে, সেটি নড়াচড়া করতে পারছে না।
Convallaria majalis : কনভেলেরিয়া রেগুলার অথবা ইরেগুলার হার্ট বিট বিশিষ্ট দুর্বল হৃদপিন্ডের জন্য একটি মূল্যবান ঔষধ, সাথে ভাল্বের সমস্যা থাকুক অথবা নাই থাকুক। ইহার প্রধান লক্ষণ হলো রোগী শুইতে পারে না (অর্থাৎ শুইলে রোগ মাত্রা বেড়ে যায়)।

Vanadium :  সাধারণত বয়স চল্লিশের দিকে আসলে মানুষ নানা রকমের রক্তনালী সংক্রান্ত রোগে বা হৃদরোগে আক্রান্ত হতে শুরু করে। এজন্য এই বয়স থেকে প্রত্যকেরই (নিম্নশক্তিতে বছরে অন্তত একমাস) ভ্যানাডিয়াম খাওয়া উচিত। তাহলে হৃদরোগ ধারেকাছে আসতে পারবে না।

Arnica montana :  আর্নিকা হৃৎপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে ভালো ঔষধ। যাদের ঘনঘন বুকে ব্যথা উঠে অথবা যাদের একবার হার্ট এটাক (স্ট্রোক) হয়েছে, তাদের সব সময় আর্নিকা ঔষধটি পকেটে নিয়ে চলাফেরা করা উচিত। এটি আপনাকে হার্ট এটাকে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে যাওয়া বা অকাল মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করবে।

Latrodectus mactans :  হৃৎপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে ভালো ঔষধ হলো লেট্রোডেক্টাস ম্যাকটেনস (Latrodectus mactans) বিশেষত ব্যথা যখন বাম হাতের দিকে ছড়াতে থাকে। মনে হয় কেউ যেন শক্ত হাতে গলা চেপে ধরেছে ; দম বন্ধ হয়ে এখনই মারা যাবে।

Amylenum nitrosum : এটি হৃৎপিন্ডের ব্যথার সবচেয়ে কমন ঔষধ। এটি হৃৎপিন্ড এবং শরীরের ওপরের অংশের রক্তনালীকে প্রসারিত করার মাধ্যমে বুকের ব্যথা নিরাময় করে।
Glonoine : গ্লোনইন হলো হৃৎপিন্ডের ব্যথার এক নাম্বার ঔষধ যা সুনির্দিষ্ট কোন লক্ষণ ছাড়াই দেওয়া যায়। পাশাপাশি এটি হাই ব্লাড প্রেসারেরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ।

Cactus grandiflorus :  ইহাও হৃৎপিন্ডের রোগের একটি উল্লেখযোগ্য ঔষধ। ইহার প্রধান লক্ষণ হলো মনে হবে হৃৎপিন্ডকে কেউ তার লোহার হাত দিয়ে এমনভাবে চেপে ধরেছে যে, সেটি নড়াচড়া করতে পারছে না।

Convallaria majalis :  কনভেলেরিয়া রেগুলার অথবা ইরেগুলার হার্ট বিট বিশিষ্ট দুর্বল হৃদপিন্ডের জন্য একটি মূল্যবান ঔষধ, সাথে ভাল্বের সমস্যা থাকুক অথবা নাই থাকুক। ইহার প্রধান লক্ষণ হলো রোগী শুইতে পারে না (অর্থাৎ শুইলে রোগ মাত্রা বেড়ে যায়)।

Vanadium : সাধারণত বয়স চল্লিশের দিকে আসলে মানুষ নানা রকমের রক্তনালী সংক্রান্ত রোগে বা হৃদরোগে আক্রান্ত হতে শুরু করে। এজন্য এই বয়স থেকে প্রত্যকেরই (নিম্নশক্তিতে বছরে অন্তত একমাস) ভ্যানাডিয়াম খাওয়া উচিত। তাহলে হৃদরোগ ধারেকাছে আসতে পারবে না।




চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com


হৃদপিন্ডের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধির ড্রপ LN-2

হৃদপিন্ডের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধির ড্রপ LN-2



হৃদপিন্ডের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধির ড্রপ
NL -2
ক্যাক্টাস গ্রান্ডিফ্লোরাস

রোগের লক্ষণ : হৃদপিন্ডের গঠনগত এবং ক্রিয়ামূলক বিকৃতি : প্রধানত হৃদপিন্ড জনিত মানসিক অসুস্থতা (Cardiac neurosis)  স্নায়বিক উদ্বগ (Nervous perturbations)  হৃদপিন্ডের অনিয়মিত ক্রিয়াকলাপ ও অনিয়মিত হৃদপিন্ডের (Amhythmia)  দ্রুত হৃদস্পদন ( Tyachycarda) হৃদপিন্ডের সম্পীড়ন (Constricions)  হৃদশূল (Angina pectors)  হৃৎপিন্ডে রক্তসঞ্চালক ধবনীর মধ্যে দিয়ে অপর্যাপ্ত রক্ত প্রদাহ (Coronary insufficiencies) , দৃঢ় নাড়ীর গতি (Strong pulse),  বুক ধড়ফড়, হৃদপিণ্ডের উত্তেজনা (Excitations), হৃদপিন্ডের যন্ত্রণা (Anguish) ও উৎপীড়ন, স্বয়ংক্রীয় স্নায়ুতন্ত্র (Autonomic nerboun System)  এর ক্রটিজনিত রক্তনালীর অনিয়ন্ত্রিত সংকোচন ( Vegetaive dystonia) ইত্যাদি করণে ব্যাবহার করা যেতে পারে।


বিশেষ রোগ লক্ষণ : দমবন্ধ হওয়া অনুভুতি, দৃঢ় নাড়ীর গতি, বুকে ভার অনুভুতি, হৃৎশূল (Vegina pectoris)  করোনারি ধমনী সংকীর্ণ হওয়ার করণে হৃদপিন্ডের পেশীতে হঠাৎ অক্সিজেনের অভাব (Stenocardia) হলে ব্যহার করা যাবে।

উপাদান : ক্যাক্টাস গ্র্যান্ডিফ্লোরস ( Cactus Grandifiorsus), Anica, Crategus, Digialis, lgnatia, Kalium phosphoricm, Lauroverasus, Spigelia, Valeriana  এবং অন্যান সহায়ক উপাদান  (হোমিওপ্যাথিক ঔষধ)

সেবনবিধি : রোগের তীব্রতা অনুসারে শুরুতে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ কিছু পানিতে মিশিয়ে ৩ দিনে ৩ থেকে ৬ বার। হৃদপিন্ডের তরুণ রোগ আক্রমণে ১০ থেকে ১৫ ফোঁটা ঔষধ প্রতি ১৫ মিনিট ৩০ মিনিট অন্তর উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধ কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয় নাই। ঔষধ সেবন করার পর কোনরুপ পার্শ্বপ্রতিত্রিয়া দেখা দিলে আপনার চিকিসকের পরামর্শ নিন।

সাবধানতা : শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন। অতিরিক্ত ডোজ পরিহার করুন। শুধুমাত্র রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে সেব্য। গর্ভবস্থায় শুধুমাত্র রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে সেব্য। 



চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com


বৃহস্পতিবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

টনসিলাইটিস ও প্রদাহ ড্রপ NL-1

টনসিলাইটিস ও প্রদাহ ড্রপ NL-1



টনসিলাইটিস ও প্রদাহ 
NL -1
ফাইটোলাক্কা 

রোগ নির্দেশ : টনসিলাইটিস, প্রদাহ ও অন্যান্য লক্ষনের জন্য

বিশেষ রোগ লক্ষণ : নতুন ও পুরাতন টনসিলাইটস ও অন্যান্য গ্রন্থিও স্থানীয় প্রদাহ, গ্রস্থি প্রদাহ। গলবিল (Pharynx) এর লসিকাবহের প্রদাহ এবং পূঁজ জমা। টনসিল এর এনজাইনা (ব্যথা), টনসিলাইটিস, কানের প্রদাহ (Ottis media), গ্রন্থি প্রদাহ, মম্পস, অন্ডকোষ প্রদাহ (Orchits) ইত্যাদিতে ব্যবহার।

উপাদান : ফাইট্রোলক্কা ডেকান্ড্রা (Phytolacca Decandra), Apis Mellifca, Barium Chloratum, Belladona, Calcarea lodatum, Hepar Sulphur, Kali Bichromicm, Marum Veum, Mercrius Subilmatus, Cottosivus, এবং অন্যান্য সহায়ক উপাদান হোমিওপ্যথিক ঔষধ।


সেবনবিধি : ১০ থেকে ১৫ ফোটা দিনে ৩ থেকে ৪ বার সামান্য পানি সহ অথবা রেজি: হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের নির্দেশা অনুযায়ী সেব্য। উচ্চ জ্বরসহ তীব্র সংক্রমণের ক্ষেত্রে শুরুতে ১০ থেকে ১৫ ফোটা ঔষধ কিছু পরিমান পানি মিশিয়ে প্রতি আধা ঘন্টা থেকে ১ ঘন্টা পরপর ১ থেকে দুই ২ দিন।
পুঁজসহ (Purulent tonsillts) এর ক্ষেত্রে একই মাত্র অনুসরণ করা যাবে। অবস্থার উন্নতির পরে, একই ডোজ প্রতি ১ বা ২ ঘন্টা পরপর গ্রহণ করণ। আরোগ্যও পরে ১০ থেকে ১৫ ফোটা করে দিনে ১ থেকে ২ বার আরো প্রায় এক সপ্তাহ খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া আছে।

পুরাতন প্রদাহ এর ক্ষেত্রে দিনে ২ থেকে ৩ বার ১০ থেকে ১৫ ফোটা কিছু পরিমান পানি সহ চলবে আরোগ্য না হওয়া পর্যন্ত।

শিশুদের দীর্ঘস্থায়ী গ্রন্থি ফোলার ফলে শরীরের গঠন প্রকৃতি (Constiuton) পরিবর্তন ক্ষেত্রে ৫ থেকে ৮ ফোটা কিছু পরিমান পনিসহ দিনে একবার করে দীর্ঘতর মেয়াদে সেবন করতে হবে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : এই ঔষধের কোন পার্শ্বপ্রতিত্রিয়া পরিলক্ষিত হয় নাই। ঔষধ সেবন করার পর যেকোন বিরুপ প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয় নাই।

সাবধানতা : শিশুদের নাগালের বাইওে রাখুন। অতিরিক্ত ডোজ পরিহার করুন। শুধু মাত্র রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে সেব্য। গর্ভবস্থায় শুধুমাত্র রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকের পরামর্শে সব্য। 
পরিবেশনা - ৩০ মিলি বোতল।




                                                

চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-

আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com


বুধবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

স্ট্রোক সাধারণত বাথরুমেই বেশি হয় কেন?

স্ট্রোক সাধারণত বাথরুমেই বেশি হয় কেন?


স্টোক সাধরণত বথরুমেই বেশি হয় কেন:-

স্টোক সাধারণত বাথরুমেই বেশি হয়। ইহার কারণ বাথরুমের ঢুকে স্না করার সময় আমরা প্রথমেই মাথা এবং চুল ভেজাই যা একদম উচিত নয়। এটি সাধারণ প্রায় মানুষই করে থাকে। এই ভাবে প্রথমে মাথায় জন দিলে রক্ত দ্রুত মাথায় দ্রুত মাথায় উঠে যায় এবং কৈশিক ও ধমনী একসাথে ছিঁড়ে যাওয়া সম্ভবনা থাকে। যাহার ফলে স্টোক করে তার:পর মাটিতে পড়ে যায়।

কানাডার মেপিকেল অ্যাসোসিয়েশন জানালে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে স্টোক বা মিনি স্টোকের করণে যে ধরণের ঝঁকি কথা আগে মনে করা হতো প্রকৃতপক্ষে এই ঝুঁকি দীর্ঘস্থায় এবং আরো ভয়াবহ হতে পারে। বিশ্বের একাধিক গবেষণা রিপোর্ট অনুযায়ী, স্নানের সময় স্টোক আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বা পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা দিনের পর দিন বেড়েই চলছে চিকিৎসদের স্নান কারার সময় কিছু নিয়ম মেনে সাবাইকে স্নান করা উচিত।



সছিক নিয়ম মেনে স্নান না করলে হতে পারে মৃত্যু। স্নান করার সময় প্রথমেই মাথা এবং চুল ভেজানো একদম উচিত নয়। কারণ মানুষের শরীরে রক্ত সঞ্চালন একটা নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় হয়ে থাকে। শরীরের তাপমাত্রা বাইরের তাপ মাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নিতে সাধরণত কিছুটা সময় লাগে। চিকিৎসদের মতে মাথায় প্রথমেই জল দিলে সঙ্গে সঙ্গে রক্ত সঞ্চালনের গতি বহু গুণ বৃদ্ধি পায়। সে সময় বেড়ে স্টোকের ঝুঁকিও । অতিরিক্ত রক্তসঞ্চালনে ফলে রক্তের চাপ বেড়ে মস্তিস্কের ধমনী ছিঁড়ে সাওয়ার সম্ভবনা থাকে।


স্নান করার সঠিক নিয়ম :-
প্রথমে পায়ে পাতা ভেজাতে হবে। তারপর আস্তে আস্তে উপর অংশের কাঁধ পর্যন্ত ভেজাতে হবে। তার পর মুখে পানি দিয়ে ভেজাতে হবে। সবার শেষে মাথায় পানি দিয়ে ভেজাতে হবে।

যাহাদের উচ্চ রক্তচাপ, উচ্চ কোলেস্টরণ এবং মাইগ্রেন আছে তাদের অবশই এই নিয়ে মেনে চলা উচিত। এই তথ্যগুলো বয়স্ক মা-বা এবং আত্নীয় পরিজনদের অবশ্যই জানিয়ে দিন।


চিকিৎসার জন্য যোগাযোগ :-
আরোগ্য হোমিও হল
প্রতিষ্ঠাতা : মৃত: ডা: আজিজুর রহমান
প্রা: ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)
বি. এস এস, ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা)
ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)
 ডি.এইচ.এম.এস (ঢাকা)
রেজিষ্টার্ড নং - ১৬৯৪২
স্থাপিত - ১৮৬২ ইং
মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।
মোবাইল : ০১৭১৮-১৬৮৯৫৪
রোগী দেখার সময় প্রতিদিন বৈকাল ৪টা হতে রাত্রি ১০টা পর্যন্ত।
  
Mel: arh091083@gmail.com . hafizurrahman2061980@gmail.com


মঙ্গলবার, ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

থাইরয়েড রোগে হোমিপ্যাথিক ঔষধ

থাইরয়েড রোগে হোমিপ্যাথিক ঔষধ


থাইরয়েড এর কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা :
বর্তমান পৃথিবীতে থাইরয়েড সমস্যায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেক বেশী। অনেকে এই রোগের নাম শুনলেও বা আশেপাশে আক্রন্ত রোগী দেখলে কিংবা নিজের আক্রান্ত হলেও আমারা এই রোগ সম্পর্কে
অনেকেই খুব একটা বেশী জানিনা। চলুন তা হলে এ সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

থাইরয়েড কি?
থাইরয়েড হল আমাদের একটি গ্রন্থি যা আমাদের গলার সমনের দিকে অবস্থিত। এই গ্রন্থি থেকে কিছু প্রয়াজনীয় হরমোন নি:সৃত হয়। এই হরমোন আমাদের বিপাকসহ আরও বিভিন্ন কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। এই রহমোন তৈরির জন্য এই গ্রন্থিটির প্রয়োজনীয় পরিমাণে আয়োডিনের দরকার হয়। উক্ত হরমোন আমাদের বিপাক ক্রিয়া সহ বিবিন্ন শারীরিক ও মানসিক বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা
পালন করে।

থাইরয়েড গ্রন্থি
থাইরয়েড গ্রন্থি সাধারণত ২ ধরণের হরমোন নি:সরণ করে।
ট্রাই-আয়োডোথাইরোনিন (T3)
থাইরক্সিন (T4)
বাচ্চাদের ক্ষেত্রে জন্মের সময় এই গ্রন্থি ঠিকভাবে তৈরি না হলে কিংবা প্রয়াজনমত হরমোন তৈরি করতে না পারলে বাচ্চাদের শারীরিক এবং মানসিক বৃদ্ধি ব্যহত হয়।
আমাদের শরীরে যতটুকু হরমোন প্রয়াজন তার চেয়ে কম বা বেশি পরিমানে  হরমোন তৈরি হলে হাইপোথাইরয়ডিজম হতে পারে। অবার প্রয়োজনের তুলনায় বেশি পরিমাণে এই হরমোন উৎপান্ন হলে হাইপারথায়ডিজম হতে পারে। উভয়ই আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতি কর। এছাড়াও উক্ত গ্রন্থি থেকে আরও বিভিন্ন রোগ হতে পারে।


এই গ্রন্থি থেকে সাধারণত বেশ হয় এমন কিছু রোগ নিয়ে আলোচনা 

ঘাইপোথাইরয়ডিজন  (Hypothyroidism)
হাইপারথাইরয়ডিজন (Hyperthyroidism)
গায়েটার  (Goiter) 
নডিউল (Nodule) 
থাইরয়েড ক্যান্সার Thyroid Cancer) 
গ্রেভস ডিজিজ (Graves disease)
হাইপোথাইরয়ডিজম (Hypothyroidism)



থাইরয়েড গ্রন্থি যদি প্রয়োজনের তুলনায় কম হরমোন উৎপাদন করে তখন  ঘাইপোথাইরয়ডিজম হবার সম্ভবনা থাকে। যদিও আনেক সময় এর চোখে পড়ার মত লক্ষণ দেখা যায় না। ফলে অনেকে বঝতেই পারেনা যে তিনি হাইপোথাইরয়ডিজম এ আক্রান্ত।

হাইপোথাইরয়াজিম হলে যে লক্ষণ দেখা যায় :

ক্লান্তি কিংবা অবসাদ অনুভব করা
কোন কিছুতে মোনযোগ দিতে পারে না।
শরীরের ত্বক শুস্ক হয়ে যায়
কোষ্ঠকাঠিন্য দেখা যায়।
অল্পতেই শীত শীত অনুভব করে।
পেশী বা বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যাথা অনুভুত করে।
বিষন্নতা অনুভব করে।
মহিলাদের ক্ষেত্রে ঋতুস্রাবের সময় অতিরিক্ত পরিমাণ রক্তক্ষরণ হয়।
শরীরের পালস রেট কম স্বাভাবিক এর তলনায় কম দেখা যায়।

থাইপারথাইরয়জিয়াম:
এ ক্ষেত্রে হাইপারথাইরয়াডিজম এর উল্টো ঘটনা ঘটে। থাইরয়েডে গ্রন্থি প্রয়োজনের তুলানয় বেশি হরমোন উৎপাদন করলে হাপারথাইরয়াডিজম হবার সম্ভবানা থাকে। থাইরয়েড গ্রন্থিকে নিয়ন্ত্রণ করে মস্তিস্কের পিটুইটারি গ্রন্থি নামক এক গ্রন্থি। মস্তিস্কের এই পিটুইটারি গ্রন্থিকে আবার নিয়ন্ত্রণ 
করে মস্তিস্কেও হাইপাথ্যালাম নামক অংশ এই হাইপাথালামাস থাইরয়েড রিলিজিং হরমোন (TRH)  নামক এক হরমোন নির্গত করে।   এই (TRH)  হরমোন এর কাজ হল পিটুইটারি গ্রন্থিকে থাইরয়েড স্টিমুলেটিং হরমোন (TRH) নামক এক হরমোন নির্গত করার জন্য সংকেত পাঠানো। এই ঞজঐ হরমোন উক্ত গ্রন্থিকে থাইরয়েড হরমোন নির্গত রকার জন্য সংকেত পাঠায়। বোঝা গেল তাহলে এই হরমোন উৎপাদন এর জন্য শুধুমাত্র থাইরয়েড গ্রন্থি দায়ী নয়। হাইপোথ্যালামাস, পিটুইটারি গ্রন্থি এবং থাইরয়েড গ্রন্থি মিলিত প্রচেষ্টায় হরমোন নির্গমণ কাজ সম্পন্ন হয়।
এখন উক্ত তিনটি গ্রন্থির যে কোনো একটি বা একাধিক গ্রন্থি যদি প্রয়োজনের তুলনায় বেশি কাজ করে ফলে যতটুকু হরমোন দরকার তার চেয়ে বিশি পরিমাণ হরমোন উৎপন্ন হয়। আর তখনই বাঁধে সমস্যা। যেটা হাইপারথাইরয়াজিম নামে পরিচিত।

হাইপারথাইরয়াজিমম হলে যে লক্ষণ দেখা যায় :-
অতিরিক্ত ঘাম হয়
গরম সহ্য হয় না
খাবার হজমে সমস্যা
দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ বেড়ে যা।
অস্থিরতা অনুভব করে।
শরীরের ওজন কমে যায়।
পালস রেট বেড়ে যায়।
অনিদ্রা দেখা যায়
চুল পাতলা এবং ভঙ্গুর হয়ে যায়।
ত্বক পাতলা হয়ে যায়।
মহিলাদের ক্ষেত্রে ঋতুস্রাব অনিয়মিত কিংবা খুব অল্প পরিমাণে হয়।
বয়স্ক রোগীদের হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়। শরীর খুব খারাপ অবস্থা হলে এবং হাইপারথাইরয়াডিজম এর প্রয়োজনীয় চিকিৎসা না হলে থাইরয়েড স্টর্ম (thyroid storm) হতে পারে। এতে রোগীর রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে, জ্বর আসাতে পারে এবং হৃদস্পন্দন বন্ধ হবার সম্ভবনা থাকে।


হোমিওপ্যাথিক ঔষধ :
হোমিওপ্যাথিক ঔষধে থাইরয়েড চিকিৎসায় থাইরয়েডিনাম ছাড়াও আয়োডিন, নেট্রাম মিউর, লাইকোপডিয়া, সাইলেসিয়া, ফিডোরিনাম, থুজা, মেডোরিনামসহ আরও অনেক ঔষধ লক্ষনের উপর আসতে পারে তবে কখনো রেজিষ্টর্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঔষধ খাওয়া ঠিক নয়। কারণ চিকিৎসক তার অভিজ্ঞতার ওপর ঔষধ নির্বাচন করে থাকেন যা চিকিৎসা ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ঔষধে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ক্ষতি সম্ভবানা প্রবল থাকে। 

থাইরয়েড এ সমস্যায় লক্ষণ বিত্তিক বেস্ট তিনটি হোমিওপ্যাথিক ঔষধের বর্ননা নীচে দেওয়া হলো :
Thyroidinum (থাইরয়েডিনাম) 
১. দেহ ও মনের খর্বতা
২. অতিরিক্ত মোটা হতে থাকা বা ফুলতে থাকা কিম্বা অতিরিক্ত রক্তহীনতা ও শীর্ণতা।
৩. চর্মরোগ ও চুল উঠে যায়।
৪. উন্মাদ ভাব এবং অনিদ্রা।

Thyroidinum  (থাইরয়েডিনাম) চরিত্রগত লক্ষণ :
১/ দেহ ও মনের খর্বতা। উন্মাদ ভাব এবং অনিদ্রা। অঘোরে ঘুম ও 
অস্থিরতাসহ বিষাদ পর্যায়ক্রমে উপস্থিত, উত্তেজনা প্রবণ, অল্প প্রতিবাদে উত্তেজিত হয়, সামন্য কারণে চটে উঠে। উত্তেজিত উত্তেজনার পরেই মানসিক অবসাদ। হতবুদ্ধি বাব, রাত্রে বয়ের অভিব্যক্তি। অত্যন্ত ক্রিপন, স্বভাব, অল্পে অসন্তষ্ট, সর্বদাই বিষন্ন, সর্বদাই বিরক্ত, অকারণে কাঁদে, উলঙ্গ হয়, আত্নহত্যার ইচ্ছা ইত্যাদি লক্ষণ থাকে।
২/ অতিরিক্ত মোটা হতে থাকা কিংবা অতিরিক্ত রক্তহীনতা, প্রবল দুর্বলতা ও শীর্ণতা। রোগী সময় সময় সাংঘাতিক রুপে রক্তহীন হয়ে পড়ে ও শরীর কঙ্কালসার হয়।
৩/ চর্ম রোগ এবং মাথার চুল উঠিয়া যায়।
৪/ থাইরয়েড গ্রন্থিও দুর্বলতা থেকে প্রচুর পরিমাণে মিষ্টি দ্রব্য খাওয়ার প্রবৃত্তি জন্মে।
৫/ অত্যান্ত শীতার্ত।
৬/ মিষ্টি দ্রব্যে খাওয়ার আকাঙ্খা বেশী।
৭/ রক্তস্বল্পতা, র্শীণতা, পেশী দুর্বলতা, ঘাম, মাথা ধরা, মুখ ও অঙ্গ প্রত্যাঙ্গ স্নায়বিক কম্পন, ঝিনঝিন করার অনুভুতি ও পক্ষঘাত সৃষ্টি করে। হৃৎক্রিয়া ঘাড়ে, চক্ষুগোলক বহির্নিগত ও প্রসারিত হ। শ্লৈম্মিক শোথ ও গলগন্ডসহ জড়বুদ্ধি রোগে ভাল কাজ করে।
৮/ স্ত্রীলোকের ঋতু এক বৎসর যাবৎ বন্ধ থাকলে ও এই ঔষধ সেবনে এক সপ্তাহের মধ্যে পুনরায় ঋতু অবির্ভাব সম্ভব হইয়া থাকে। ঋতু¯্রাব বন্ধ হয়ে স্তনে দুগ্ধ ক্ষরণ বড়ে যায়। ঋতুস্রাব-পরিমানে প্রচুর, দীর্ঘস্থায়ী, অল্প বয়সে রজ:লোপ।
৯/ ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে স্তনে দুগ্ধ ক্ষরণ বেড়ে যায়।
১০/ ঠান্ডা পানির পিপাসা।
১১/ রাত্রে গাড়িতে বমি ভাব, ঠান্ডায় বৃদ্ধি।
১২/ ক্ষীণ, অবিরাম নাড়ী। সামনে ঝুকিলে বুক ধড়ফড়ানি বেড়ে যায়, বুক ধড়ফড়ানি জন্য বিছানায় শুয়ে থাকতে পারে না। দ্রুত নাড়ী (ন্যাজ) বুকে উদ্বেগ বোধ যেন বুক সঙ্কচিত হয়ে পড়েছে। সামান্য পরিশ্রমে বুক ধড়ফড়ানি হৃদৎপিন্ডের ক্রিয়া দুর্বল, সেই সাথে আঙ্গলের অবশতা।

২/আয়োডিনাম :
ক্রিয়াস্থল : গ্লন্ড সমূহের উপর, স্ত্রীলোকদের স্তন, ডিম্বাকোষ, শ্লৈম্মিক ঝিল্লি, অন্ত্রর ক্রিয়া প্রকাশ করে।

আয়োডিনাম এর চরিত্রগত ও ধাতুগত লক্ষণ :
ক/ অত্যান্ত ক্ষুধা এবং প্রচুর আহার সত্বেও শীর্ণতা। খাওয়ার পর রোগী শান্তি পায়। খাইলে শান্তি পায় না খাইলে অশান্তি শুরু হয়।
খ/ দেহের শীর্ণতা, রোগী এত খায় তবুও শুকাইয়া যায়।
গ/ মেয়েদের স্থন দুটি শুকাইয়া ন্যাকড়ার মত হইয়া পড়ে।
ঘ/ থাইরয়েড, স্তন, যকৃত ডিম্বাধার, অন্ডকোষ, গ্রীবা, প্রষ্টেট গ্রন্থি বা গলা ফোলা, মুত্রশায় ফুলিয়া শক্ত হইয়া যায়।
ঙ/ রোগী গম কাতর তবে সব সময় ঠান্ডা চায়। ঠান্ডা বাতাস, ঠান্ডা পানী পান করতে চায়।
চ/ সামান্য কারণে ঠান্ডা বা সর্দি লেগে যায়।
ছ/ অত্যান্ত গরম প্রবণতা ও দুর্বলাতা।
জ/ স্নান করিতে আগ্রহী, অনেক সময় ২/৩ বারও স্নান করে।
ঝ/ রোগী সামন্য পরিশ্রমেই দুর্বল হইয়া পড়ে।
ঞ/ সিঁড়ি দিয়া উপরে উঠিতে গেলে মনে হয় দম বন্ধ হয়ে যাবে।
নেট্রাম মিউর

সারসংক্ষেপ : অলস্য, নম্রতা, ইন্দ্রিয় শক্তির স্নাহরতা, জৈব তরল পদার্থ নষ্ট হয়ে রক্ত শূন্যতা, ও শ্লেম্মাপ্রধান ধাতু ব্যক্তি। গলার মাঝে প্লাগ থাকার অনুভুতি। সকাল ১০টায়, পূর্বাহ্নে, দৈহিক পরিশ্রমে, ময়দা দ্বারা প্রাস্ত নায় বাড়ে। ঠান্ডা পানিতে গোসলে, শুয়ে থাকলে, ঘামের পরে, চাপে, দীর্ঘ শ্বাসে, ডান পাশে শয়নে ও কাজড় এঁটে পরলে কমে। ক্রোধ খিটখিটে, উৎকন্ঠা, প্রেমাতুর, নির্বাক দু:খ, বিষণতা, অত্যানুভুততিযুক্ত, উদাসীনতা, প্রলাপ, অসন্তষ্ট, স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা, কাঁদে, তেতো ও লবণ প্রিয়তা, প্রকাশ্য স্থানে প্রস্রাব করতে লজ্জাবোধ। পরনো আশাভঙ্গ হতে রোগের উৎপত্তি। দীর্ঘ সময় অবনত হয়ে থাকলে কোমর বা পিঠ ব্যথা করে। ঘামাবস্থায় ব্যথা ছাড়া অন্য সকল লক্ষণ উপশ্রম। শীর্ণতা, স্পপ্নসঞ্চরণ, রক্তস্বপ্লতা ও রক্তস্রাব ।

নেট্রাম মিউর এর বিশেষ লক্ষণ :
১/ পুরনো আশাভঙ্গ হতে রোগী উৎপত্তি।
২/ দীর্গ সময় অবনত হয়ে থাকলে কোমর বা পিঠ ব্যথা করে।
অনুভতি : (ক) জিবে চুল থাকার অনুভুতি।
(খ) উত্তাপর ঝলকাবোধ, ঘুমের সময় যেনো গরম পানি ছিটিয়ে দিচ্ছে এ রুপ অনুভতি।
(গ) উত্তাপের অনুভুতি, জাগলে, রক্তবহা নালিগুলোতে টেটে লম্বা করার অনুভুতি।
সঠিক হোমিপ্যাথিক চিকিৎসা পেতে হলে জানতে হবে তবে চিকিৎসকের পরামর্শ/নির্দেশনা ছাড়া কোন ঔষধ সেবন করা উচিত নয়। 
খাইরয়েড রোগীরা কি কি খাবেন :
ফ্রেস ফল এবং শাকসজি, সামুদিক মাছ, প্রচুর পরিমাণে পানি, আদা, সবুজ সবজির রস, কাঁচা সবজি
যেমন : চমেটো, কাঁচা মরিচ, গাজর, শশা, খিরা, পেঁঁপে ইত্যাদি খাবার বেশি খাওয়া উচিত।

থাইরয়েড রোগীদের খাবার বাধা-নিষেধে:
বাঁধাকপি, পুঁইশাক, ব্রকোলি, প্রভৃতি খাদ্য বেশি পরিমাণে খেলে থাইরয়েডের মস্যা হতে পারে।



চিকিৎসার্থে যোগাযোগ করুন-
আরোগ্য হোমিও হল

প্রতিষ্ঠাতা : মৃত : ডা: আজিজুর রহমান 

ডা: মো: হাফিজুর রহমান (পান্না)

বিএসএস, ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

ডা: মোসা: অজিফা রহমান (ঝর্না)

 ডিএইচ এমএস (ঢাকা)

রেজি নং- ১৬৯৪২

স্থাপিত -১৯৬২

মথুর ডাঙ্গা, সপুরা, বোয়ালিয়া, রাজশাহী।

মোবাইল - ০১৭১৮১৬৮৯৫৪

arh091083@gmail.com 

hafizurrahman2061980@gmail.com